বলিউডে জয়া আহসান, নায়ক নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, ১:৫৪ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আকাশ ভেঙে বৃষ্টি নামার আগে যেমন একটা থমথমে ভাব থাকে, গেল ক’মাস তেমনই ছিলেন বাংলার জয়া আহসান। গেল ক’মাসে টলিউড কিংবা চলচ্চিত্রের বিশ্ব-বাজার থেকে ভেসে ভেসে ঢাকার অনেক খবরই আসছিলো দেশে, কিন্তু কোথাও পাওয়া যাচ্ছিলো না জয়া আহসানকে। অথচ গেল ক’বছর ধরে নানা মাত্রায় বাংলার প্রধান অভিনেত্রী হিসেবেই আসন ধরে রেখেছিলেন এই অভিনেত্রী।
অবশেষে বৃষ্টিটা নামলো, এলো দারুণ একটা খবর। টলিউড জয় করে অবশেষে ঢালিউডের জয়া আহসান পা ফেলছেন বলিউডেও! বিপরীতে পাচ্ছেন আরেক বলিউডের অনবদ্য অভিনেতা নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকি। খবরটি প্রথমে নিশ্চিত করেছেন নির্মাতা সায়ন্তন মুখোপাধ্যায়, আনন্দবাজারকে। পরে বাংলা ট্রিবিউনকে নিশ্চিত করেছেন জয়া আহসান। যদিও মুখফুটে বিস্তারিত বলতে পারেননি, না বলার শর্তে বাঁধা আছেন বলে।
তবে নির্মাতা সায়ন্তন মুখোপাধ্যায় খুব একটা কম বলেননি বলিউডের এই প্রজেক্ট প্রসঙ্গে। জানান, সব ঠিক থাকলে আগামী বছর নওয়াজুদ্দিন সিদ্দিকির বিপরীতে দেখা যাবে বাংলাদেশের এই নায়িকাকে।
আগামী বছরের পূজা উৎসবের আগে তিনি ক্যামেরাবন্দি করবেন তার প্রথম রাজনৈতিক ওয়েব সিরিজটি। যার পটভূমি ১৯৬৭ সালের নকশালবাড়ি আন্দোলন। তৎকালীন বিতর্কিত পুলিশ অফিসার রুণু গুহ নিয়োগীর লেখা ‘সাদা আমি কালো আমি’ উপন্যাস অবলম্বনে মোট তিন ভাষায় (বাংলা, হিন্দি ও ইংরেজি) তৈরি হবে সিরিজটি। সায়ন্তন জানান, ‘এখানেই চারু মজুমদার হবেন নওয়াজ আর জয়া আহসান তার স্ত্রী লীলা মজুমদার।’
এই ধারার সিরিজ নির্মাণ প্রসঙ্গে সায়ন্তন বলেন, ‘‘মুম্বাইয়ের পটভূমিকায় যদি ‘সেক্রেড গেমস’ বা উত্তরপ্রদেশকে নিয়ে ‘মির্জাপুর’ সিরিজ তৈরি হতে পারে তাহলে বাংলাই বা পিছিয়ে থাকবে কেন? পশ্চিমবঙ্গের আন্দোলনের ইতিহাসও তুলে ধরার সময় এসেছে। সেই জায়গা থেকেই আমার এই উপন্যাস নির্বাচন।’’ গত দেড় বছর ধরে এই সিরিজের চিত্রনাট্যের প্রাথমিক খসড়া তৈরি করেছেন পরিচালক। তাকে সাহায্য করেছেন ‘অন্ধাধুন’ ছবির লেখক অরিজিৎ বিশ্বাস।
তিনটি পর্বে দেখানো হবে এই সিরিজ। প্রথম পর্বে থাকবে ১৯৪৭-১৯৭২ সাল।১৯৭২-১৯৯০ পর্যন্ত উঠে আসবে দ্বিতীয় পর্বে। শেষ পর্বে থাকবে ১৯৯০ থেকে বর্তমান প্রেক্ষাপট। কলকাতা, মুম্বাই, কেরালা, অন্ধ্রপ্রদেশের পাশাপাশি চীন, রাশিয়াতেও ছবির শুটিং করার পরিকল্পনা রয়েছে নির্মাতার।
এদিকে চলতি বছরেই পূজার পর মুক্তি পাবে জয়া-সায়ন্তনের পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র ‘ঝরা পালক’। জীবনানন্দ দাশের জীবন নিয়ে তৈরি এই ছবিতে কবির স্ত্রীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। পরিচালকের ভাষায়, ‘আমার জয়া-যোগ তখন থেকেই। এই ছবির কাজের সময় জয়া আমাকে অনুরোধ করেছিলেন, জাতীয় স্তরের কাজে তাকে সুযোগ দেওয়ার জন্য। সেই জায়গা থেকেই লীলা মজুমদারের চরিত্রের জন্য বলতেই এক কথায় রাজি হন তিনি।’
অন্যদিকে কলকাতায় গত ১৯ আগস্ট মুক্তি পেয়েছে জয়া আহসানের ছবি ‘বিনিসুতোয়’। অতনু ঘোষের নির্মাণে এতে জয়ার সহ-অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তী। ছবিটি মুক্তির পর সমালোচক প্রশংসা ভালোই জুটছে জয়ার পক্ষে।- বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ