বাঁশের বেড়া আর পলিথিনের ছাউনিই প্রতিবন্ধী আনজুয়ারার আশ্রয়

আপডেট: জুন ২০, ২০২১, ১১:৩৬ অপরাহ্ণ

দুর্গাপুর প্রতিনিধি:


বাঁশের বেড়া আর উপরে পলিথিন দিয়ে তৈরি তার একমাত্র থাকার ঘর। দিনের বেলা সূর্যের আলো দেয় উকি, রাত হলে ঢকে পড়ে চাঁদের আলো, শীতে কুয়াশা আর বর্ষায় ঘরের ভিতরে জমে পানি। এমন নিরাপত্তাহীন ঘরটিই শেষ আশ্রয়স্থল। এই পরিস্থিতির মধ্যেই বসবাস করেন রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার পানানগর পূর্বপাড়া গ্রামের অফির উদ্দিনের প্রতিবন্ধী মেয়ে আনজুয়ারা খাতুন।
স্থানীয়রা সূত্রে জানা যায়, তার জরাজীর্ণ ঘরটিতে চরম কষ্ট করে দিনযাপন করেন। জন্মগতভাবে সে প্রতিবন্ধী- যার কারণে জীবনের অনেকটা বয়স চলে গেলেও সংসার জীবনে পা রাখতে পারেন নি আনজুয়ারা। শুধু বেঁচে থাকার জন্য দু’বেলা দু’মুঠো ভাত আর নিরাপদে থাকার জন্য ছোট একটি ঘর হলেই সে সুখি। কিন্তু ঘরতো দূরে, বেঁচে থাকার জন্য দু’বেলা ভাতই জোটে না।
আনজুয়ারা জানান, রাতটা ভয়ের মধ্যে কাটে। সকাল হলেই ঘর থেকে বাইরে বের হই। সারাদিন অন্যের কাছে হাত পেতে সাহায্য নিয়ে কোনোরকমে জীবন যাপন করি। সবচেয়ে কষ্ট লাগে বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টি শুরু হলে চারিদিক দিয়ে ঘরে মধ্যে পানি ডুকে। পলিথিন দিয়েও পানি বন্ধ করা যায় না। একটু বেশি বৃষ্টি হলে আবার ঘরের মধ্যে পানি আটকে থাকে। তখন আর ঘরে শুয়ে থাকা যায় না। সারারাত বসে বসে রাত কাটাতে হয়। দুঃখ যে আমার পলিথিন দিয়ে তৈরি ঘরের ছাউনিটাও জরাজীর্ণ।
এ বিষয়ে দুর্গাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মহসিন মৃধা বলেন, সামাজিক নিরাপত্তার আওতায় সব ধরনের সহোযোগিতা ওই প্রতিবন্ধী নারীকে দেওয়া হবে। এমনকি অসহায় মানুষদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া উপহারকৃত বাড়ি তার জন্য ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। তার জন্য দ্রুত প্রধানমন্ত্রীর উপহারের বাড়ির ব্যবস্থা করা হবে বলে জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ