বাংলাদেশের অর্থনীতি করোনাকালেও শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে : খাদ্যমন্ত্রী

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২২, ২০২১, ৯:৫২ অপরাহ্ণ

নওগাঁ প্রতিনিধি:


বাংলাদেশের অর্থনীতি করোনাকালেও শক্তিশালী অবস্থানে রয়েছে। দেশের মাথাপিছু আয় বেড়ে এখন ২ হাজার ২শত সাতাশ ডলার। শ্রীলংকাকে ঋণ দেওয়া আমাদের অর্থনৈতিক সামর্থের প্রমাণ বহণ করে বলে মন্তব্য করেছেন খাদ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা সাধন চন্দ্র মজুমদার।

বুধবার ( ২২ সেপ্টেম্বর) পোরশা উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মসূচির আওতায় উপকারভোগীদের মাঝে প্রণোদনা সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।

সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল এখন সর্বত্র দৃশ্যমান। ডিজিটাল বাংলাদেশকে আরো জোরদারকরণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ল্যাপটপ বিতরণের কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিশুর শিক্ষার সূচনা হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, শিশুরা যাতে ছোটবেলা থেকেই তথ্য প্রযুক্তির সাথে পরিচিত এবং দক্ষ হয়ে উঠতে পারে সেটা নিশ্চিত করা এই কর্মসূচির উদ্দেশ্য।

তিনি বলেন, করোনাকালে দেশের উন্নয়ন কর্মকান্ড কিছুটা ব্যাহত হয়েছে। করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ায় উন্নয়ন কর্মকান্ড আবার গতি পেয়েছে। নওগাঁ জেলার উন্নয়নে “নওগাঁ জেলা উন্নয়ন প্রকল্প” গ্রহণ করা হয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, খুব শীঘ্রই এই প্রকল্পের কার্যক্রম শুরু হবে। এটা বাস্তবায়ন হলে নওগাঁ জেলার দৃশ্যমান পরিবর্তন হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে উন্নয়নের রোল মডেল বাংলাদেশ উল্লেখ করে সাধন চন্দ্র মজুমদার বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে ২০৩০ সালের মধ্যে জাতিসংঘ ঘোষিত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে নিজেদের অগ্রগতির স্বীকৃতি হিসেবে বিশেষ সম্মাননা ‘এসডিজি প্রগ্রেস অ্যাওয়ার্ড’ অর্জন করেছে বাংলাদেশ।

খাদ্যমন্ত্রী আরো বলেন, দেশের দরিদ্র মানুষের জন্য সামাজিক নিরাপত্তার আওতা বাড়ানো হয়েছে। বয়স্কভাতা, বিধবাভাতা এবং প্রতিবন্ধীভাতাসহ সব ধরনের ভাতা ভোগীদের আর্থিক সহায়তার পরিমাণও বৃদ্ধি করা হয়েছে। অসহায় দরিদ্র আর কেউ এ সুরক্ষার বাইরে থাকবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হামিদ রেজা এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পোরশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ মঞ্জুর মোর্শেদ চৌধুরী। এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো: মাজহারুল ইসলাম, কৃষি কর্মকর্তা সঞ্জয় কুমার সরকার এবং মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সুলতান মাহমুদ বক্তব্য রাখেন।

এর আগে মন্ত্রী পোরশা উপজেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে করোনাকালে অসহায় দরিদ্রদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ, পোরশা উপজেলা পরিষদ ল্যাবরেটরি বিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমের উদ্বোধন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দ্বিতল বাসভবনের নির্মাণ কাজ উদ্বোধন, তৃতীয় প্রথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি-৩ এর আওতায় বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ বিতরণ, কৃষকদের মাঝে পেয়াজ বীজ বিতরণ এবং ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় দরিদ্র ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে ঢেউটিন বিতরণ করেন।

সুত্র হতে জানা যায়, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার দ্বিতল বাসভবনের নির্মাণ কাজের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। মা ও শিশু সহায়তা কর্মসূচির আওতায় ১৮৫ জনকে ৩ হাজার দুইশত টাকা করে আর্থিক সহায়তা, ২৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২৫টি ল্যাপটপ, ৫০ জন কৃষকের মাঝে পেয়াজ বীজ, সার ও অন্যান্য উপকরণ, ৩০ জনের মাঝে মাসকলাই বীজ ও সার বিতরণ এবং ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় দরিদ্র ৩২ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের মাঝে ঢেউটিন ও ৩ হাজার করে টাকা বিতরণ করা হয়।