বঙ্গবন্ধুর শততম জন্মবার্ষিকী

বাংলাদেশের তিন সোনার পদকে রাঙানো দিন

আপডেট: December 8, 2019, 1:04 am

সোনার দেশ ডেস্ক


একে একে কেটে গেছে সাতটি দিন। তৃতীয় ও সপ্তম দিনটিই বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে রঙিন। কাঠমান্ডু-পোখারার এসএ গেমসে এই দুই দিনে ৩টি করে সোনার পদকে চুমো এঁকেছেন বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। শনিবার মাবিয়া আক্তার সীমান্ত, জিয়ারুল ইসলাম ও ফাতেমা মুজিব দেশকে উপহার দিয়েছেন সোনার হাসি।
তিনটি সোনা ও সাতটি রুপা পাওয়ার আনন্দের উল্টো পিঠে বিষাদও যে একেবারে নেই, তা নয়। নিজেকে ‘লুজার বয়’ বলা শুটার আব্দুল্লাহ হেল বাকি এবারও সোনার পদকের নাগাল পাননি। সৈয়দা আতকিয়া হাসান দিশাকে সঙ্গে নিয়ে সাতদোবাতোর ইন্টারন্যাশনাল স্পোর্টস কমপ্লেকে ১০ মিটার এয়ার রাইফেলের মিক্সড ইভেন্টের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে রুপা পেয়েছেন। অ্যাথলেটিক্সে পথচলা সেই ব্যর্থতার বৃত্তেই বন্দ্বী।
ভারোত্তোলনে ২টি করে সোনা-রুপা, ১টি ব্রোঞ্জ : পোখারায় হওয়া ভারোত্তোলনে স্ন্যাচে পিছিয়ে থাকলেও ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ঘুরে দাঁড়িয়ে মেয়েদের ৭৬ কেজি ওজন শ্রেণিতে সোনা জিতেন মাবিয়া। স্ন্যাচে ৮০ কেজি ও ক্লিন অ্যান্ড জার্কে ১০৫ কেজিসহ মোট ১৮৫ কেজি ওজন তুলে সেরা হন গত এসএ গেমসে ৬৩ কেজি ওজন শ্রেণিতে সোনা জেতা এই ভারোত্তোলক। এরপর ছেলেদের ৯৬ কেজি ওজন শ্রেণিতে স্ন্যাচ (১২০ কেজি) ও ক্লিন অ্যান্ড জার্ক (১৪২ কেজি) মিলিয়ে ২৬২ কেজি তুলে সেরা হন জিয়ারুল ইসলাম। পরে ছেলেদের ১০২ কেজিতে মোহাম্মদ মাইনুল ইসলাম সব মিলিয়ে ২৫০ কেজি ও মেয়েদের ৮১ কেজিতে জহুরা খাতুন নিশা ১৬৮ কেজি তুলে রুপা পান। মেয়েদের ৮৭ কেজি (প্লাস) ওজন শ্রেণিতে ফিরোজা পারভীন ব্রোঞ্জ পেয়েছেন।
ফেন্সিংয়ে ১টি করে সোনা ও ব্রোঞ্জ : ১৯৯৫ সালের মাদ্রাজ গেমসের সাফল্যকে বাংলাদেশ স্পর্শ করে ফাতেমা মুজিবের হাত ধরে। ফেন্সিংয়ে মেয়েদের সেইবার ইভেন্টের এককের ফাইনালে স্বাগতিক নেপালের রাবিনা থাপাকে ১৫-১০ পয়েন্টে হারিয়ে বাজিমাত করেন তিনি। ভারতের দিয়ানা দেবীকে সেমি-ফাইনালে ফাতেমা হারান ১৫-১১ ব্যবধানে। ছেলেদের ফয়েল একক ইভেন্টে রুবেল মিয়া ব্রোঞ্জ পদক জিতেছেন।
পদকহীন অ্যাথলেটিক্সে : কাঠমান্ডুর দশরথ স্টেডিয়ামে ছেলে ও মেয়েদের ৪০০ মিটার রিলের দুই বিভাগে চতুর্থ হয়েছে বাংলাদেশ। ছেলেদের বিভাগে আবু তালেব-সাইফুল ইসলাম-মাসুদ রানা-জহির রায়হান ৩ মিনিট ১৫ দশমিক ৫০ সেকেন্ড সময় নেন। শ্রীলঙ্কা (৩ মিনিট ০৮ দশমিক ০৪ সেকেন্ড) সোনা ও ভারত (৩ মিনিট ০৮ দশমিক ৩১ সেকেন্ড) রুপা জিতেছে।
মেয়েদের ইভেন্টে শাবিয়া আল সোহা-সুমি আক্তার-শরিফা খাতুন-শিরিন আক্তারে গড়া বাংলাদেশ দল ৪ মিনিট ০ দশমিক ৫৫ সেকেন্ড সময়ে দৌড় শেষ করেন। শ্রীলঙ্কা (৩ মিনিট ৪১ দশমিক ১০) সোনা ও পাকিস্তান (৩ মিনিট ৪১ দশমিক ৭৪) রুপা জিতেছে।
কুস্তিতে ১টি করে রুপা-ব্রোঞ্জ : মেয়েদের ৫৫ কেজি ওজন শ্রেণিতে রিমি সরকার রুপা পেয়েছেন। ছেলেদের ৯৭ কেজি ওজন শ্রেণিতে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন রশীদ হাওলাদার।
শুটিংয়ে একটি রুপা : ১০ মিটার এয়ার রাইফেলের মিশ্র ইভেন্টের ফাইনালে ভারতের কাছে হেরে রুপা পেয়েছে বাংলাদেশের আব্দুল্লাহ হেল বাকী ও সৈয়দা আতকিয়া হাসান দিশা। এবারের এসএ গেমসও সোনার পদক ছাড়াই শেষ করলেন বাকি।
সাঁতারে ২টি রুপা ও একটি ব্রোঞ্জ : সাঁতার থেকে সোনার পদকের দেখা মেলেনি এখনও। ছেলেদের ৫০ মিটার ব্রেস্টস্ট্রোকে আরিফুল ইসলাম ২৮ দশমিক ৩৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে রুপা পেয়েছেন। ভারতের সেলভারাস ২৮ দশমিক ০৬ সেকেন্ড সময় নিয়ে সোনা ও শ্রীলঙ্কার কিরণ মালিঙ্কা ২৮ দশমিক ৭৯ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ জিতেছেন।
ছেলেদের ৪০০ মিটার ইনডিভিজুয়াল মিডলেতে জুয়েল আহমেদ ৪ মিনিট ৪০ দশমিক ৮২ সেকেন্ড সময় নিয়ে রুপা জিতেছেন। মেয়েদের ৮০০ মিটার ফ্রি স্টাইলে ৯ মিনিট ৩৫ দশমিক ১৫ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন জুনাইনা আহমেদ।
সাইক্লিং থেকে ১টি ব্রোঞ্জ : মেয়েদের ইনডিভিজুয়াল রোড রেসে ২ ঘণ্টা ৩৬ মিনিট ০৯.৪০৩ সেকেন্ড সময় নিয়ে ব্রোঞ্জ পেয়েছেন সুবর্ণা বারমা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ