বাংলাদেশ হারলেও আস্থা ফেরালেন মাহমুদউল্লাহ

আপডেট: মার্চ ২৩, ২০১৭, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



সাব্বির রহমান ও সৌম্য সরকারের ঝড়ের পর মাশরাফি-মাহমুদউল্লাহর মারকুটে ব্যাটিং। তারপরও একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে হারতে হলো বাংলাদেশকে। বুধবার কলম্বো ক্রিকেট ক্লাব মাঠে শ্রীলঙ্কার বোর্ড একাদশের বিপক্ষে ২ রানে হার মানে বাংলাদেশ।
শেষ তিন বলে বাংলাদেশের জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল ৮ রান। ক্রিজে তখন মাহমুদউল্লাহ। অফ স্টাম্পের বাইরের বলটি মিস করলে সমীকরণ দাঁড়ায় দুই বলে আট রান। পঞ্চম বলে বাউন্ডারি পেলে শেষ বলে জয়ের জন্য প্রয়োজন হয় ৩ রানের। কিন্তু শেষ এক রান নিতে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশ। ফলশ্রুতিতে ২ রানে ম্যাচ হারে বাংলাদেশ।
প্রস্তুতি ম্যাচের হার-জিত ছাপিয়ে ক্রিকেটাররা কে কতটুকু নিংড়ে নিতে পেরেছে সেটাই মুখ্য হয়ে উঠেছে। প্রস্তুতি ম্যাচের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি তাই মাহমুদউল্লাহ-সৌম্য-সাব্বির-মোসাদ্দেক-মাশরাফি-সানজামুলদের পারফরম্যান্স। তবে ব্যাট ও বলে শুভাগত হোমের পারফরম্যান্স সবচেয়ে খারাপ। হয়তো পুরো ওয়ানডে সিরিজেই বসে থাকতে হবে এই অলরাউন্ডারকে। যারা সফল হয়েছেন তারা নিশ্চিতভাবে ওয়ানডে সিরিজের আগে আত্মবিশ্বাস পাবেন।
বোলিংয়ে বিবর্ণ হলেও ব্যাটিংয়ে উজ্জ্বল বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। কম বেশি সবাই রান পেয়েছেন প্রস্তুতি ম্যাচটিতে। শূন্য রানে ইমরুল চলে যাওয়ার পর সাব্বির ও সৌম্য মিলে ১১৬ রানের কার্যকরী জুটি গড়েন। ৪৭ রানের ইনিংস খেলা সৌম্য টেস্টের পর ওয়ানডেতে ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত রাখছিলেন।
দলের সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি হতে পারে মাহমুদউল্লাহ রান। শততম টেস্টে মোসাদ্দেকের কাছে জায়গা হারানো মাহমুদউল্লাহ ৬৬ রানের জুটি গড়েন মোসাদ্দেককে নিয়ে। সেখানেই থেমে থাকেননি মাহমুদউল্লাহ। মাশরাফিকে সঙ্গে নিয়ে ৫৮ বলে ১০১ রানের জুটি গড়েছেন ফর্মহীনতায় শততম টেস্ট থেকে বাদ পড়া মাহমুদউল্লাহ। সেখানে অবশ্য মাশরাফির অবদানই বেশি। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ হারলে ব্যাট হাতে ৭১ রানে অপরাজিত থাকেন মাহমুদউল্লাহ।
বাংলাদেশ দলের মধ্যে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেন মাশরাফি। বোলিংয়ে সুবিধা না করতে পারলেও ব্যাটিংয়ে ৩৫ বলের এক টনের্ডো ইনিংস খেলেছেন। তার ইনিংসে জয়ের সুবাস ছড়িয়েছিল টাইগাররা। ৩৫ বলে ৪টি করে চার ও ছক্কায় মাশরাফি ৫৮ রানের ইনিংসটি সাজান।
এর আগে শ্রীলঙ্কার বোর্ড একাদশের বিপক্ষে বাংলাদেশ ছন্নছাড়া বোলিং করে। আর তাতেই ৩৫৪ রানের পাহাড় করে স্বাগতিক দলটি। ওয়ানডে স্কোয়াডে থাকা কোনও বোলারই খুব বেশি সুবিধা করতে পারেনি। সবচেয়ে সফল বোলার অনভিজ্ঞ সানজামুল। তিনি ২৭ রান খরচায় নিয়েছেন একটি উইকেট। মাশরাফি-তাসকিন-শুভাগত সবার পারফরম্যান্সই ছিল বিবর্ণ। পেসার রুবেল ভালো বল করলে বেশ খরুচে ছিলেন। বিবর্ণ বাংলাদেশের বোলারদের উপর ছড়ি ঘুরিয়ে শ্রীলঙ্কান বোর্ড একাদশ ৩৫৪ রানের পাহাড় গড়ে। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ রান করেন সানদান ৬৭, কুশল পেরেরা ৬৪ ও ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ৫২।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
শ্রীলঙ্কা বোর্ড একাদশ: ৫০ ওভারে ৩৫৪/৭ (সানদান ৬৪, কুশল পেরেরা ৬৪, ধনাঞ্জয়া সিলভা ৫২, থিসারা পেরেরা ৪১, মিলিন্দা সিরিবর্ধনে ৩২; মাশরাফি ১/৬৬, তাসকিন ১/৫১, শুভাগত ০/৫৯, রুবেল ০/৬৭, মোসাদ্দেক ০/১৩, আবুল হাসান ১/৩৫, সানজামুল ১/২৭, সাইফউদ্দিন ১/৩৬)
বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ৩৫২/৮ (ইমরুল ০, সৌম্য ৪৭, সাব্বির ৭২, মুশফিক ২০, মোসাদ্দেক ৫৩, মাহমুদউল্লাহ ৭১*, শুভাগত হোম ২, সানজামুল ৫, মাশরাফি ৫৮, সাইফউদ্দিন ২*; আকিলা ধনাঞ্জয়া /৩৬১, চাতুরাঙ্গা ডি সিলভা ২/৫৩)
ফল: শ্রীলঙ্কা বোর্ড একাদশ ২ রানে জয়ী

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ