বাগমারায় দীঘি থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার

আপডেট: জানুয়ারি ৩১, ২০২৪, ৮:২৯ অপরাহ্ণ

বাগমারা প্রতিনিধি:রাজশাহীর বাগমারায় দীঘি থেকে এক যুবকের ভাসমান লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। নিহত যুবকের নাম গোলবর রহমান (৩২)। তিনি উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার ডাক্তা মহল্লার আছের আলীর ছেলে। পুলিশ উদ্ধারকৃত লাশটি ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। ওই ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার ডাক্তা মহল্লার আছের আলীর ছেলে নিহত গোলবর রহমান ১৫ বছর পূর্বে হতে পৌরসভার দানগাছী মহল্লার সোহরাব হোসেনের ছেলে সাজ্জাদ হোসেনের বাড়িতে শ্রমিকের কাজ করে আসছে। প্রতি দিনের ন্যায় মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) গোলবর রহমান নিজ বাড়ি ডাক্তা হতে দানগাছী মহল্লার সাজ্জাদ হোসেনের বাড়িতে কাজ করতে আসে। সকাল থেকে তিনি সাজ্জাদ হোসেনের বাড়িতে কাজ করে দুপুরে তিনি দীঘির ময়লা আর্বজনা পরিস্কার করতে যায়। সেখান থেকে তিনি আর ফিরে আসেনি। ধারণা করা হচ্ছে তিনি ঠান্ডার কারণে পানিতে পড়ে মারা গেছেন।

বিকেলে বাড়িতে না ফেরায় গোলবর রহমানের পরিবার থেকে সাজ্জাদ হোসেনকে সে বাড়িতে না ফেরার বিষয়টি অবহিত করেন। তখন থেকেই সাজ্জাদ হোসেন ও গোলবর রহমানের পরিবারের সদস্যরা তাকে খোঁজাখুজি শুরু করেন। গভীর রাত পর্যন্ত গোলবর রহমানের সন্ধান না পেয়ে পরিবার ও সাজ্জাদ হোসেন নিজ বাড়িতে ফিরে যান। বুধবার (৩১ জানুয়ারি) সকালে জেলেরা দীঘিতে মাছ ধরতে এসে গোলবর রহমানের ভাসমান লাশ দেখতে পায়।

খবর পেয়ে এলাকার শত শত মানুষ ঘটনাস্থলে যায়। লাশের বিষয়টি বাগমারা থানার পুলিশকে অবহিত করেন। পুলিশ খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে যান এবং লাশটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান। ওই ঘটনায় নিহতের বাবা আছের আলী বাদি হয়ে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) অরবিন্দ সরকার বলেন, দীঘির পানিতে গোলবর রহমানের লাশটি ভাসমান অবস্থায় পাওয়া গেছে। ময়না তদন্ত ছাড়া কিছুই বলা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি জানিয়েছেন ময়না তদন্তের পরে বিস্তারিত জানা যাবে।