বাগমারার মচমইল বাজারে একাধিক চুরি

আপডেট: জানুয়ারি ২৭, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

বাগমারা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার মচমইল বাজারে তিনটি স্বর্ণের দোকান, টিএমএসএস’র অফিস ও মচমইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চুরির ঘটনা ঘটেছে। এসময় স্বর্ণালংকারসহ নগদ টাকা লুটে নেয় চোরের দল।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, প্রতিদিনের ন্যায় গত বুধবার রাতে দোকানে কেনা-বেচা শেষে বাড়িতে যায় ব্যবসায়ীরা। রাতের কোন এক সময় মচমইল বাজারের ম-বাবা জুয়েলার্স, মা জুয়েলার্স ও আশা জুয়েলার্সে দোকানের তালা ভেঙে সোনা, চাদিসহ বিভিন্ন মালামাল চুরি করে নিয়ে যায়।
মা-বাবা জুয়েলার্সের মালিক কেরামিন আলী জানান, তার দোকান থেকে স্বর্ণ, চাদিসহ বিভিন্ন মালামাল নিয়ে গেছে। এতে করে প্রায় ৩ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানান তিনি। মা-জুয়েলার্সের মালিক সাইদুর রহমানের দোকান থেকে ১৬ ভরি চাদি চুরি করে। অন্যদিকে আশা জুয়েলার্সের মালিক আবদুল হালিম জানান, তার প্রায় ১০ হাজার টাকার মালামাল চুরি হয়েছে।
অপরদিকে একই রাতে টিএমএসএস’র মচমইল বাজার শাখার অফিসে জানালার গ্রিল কেটে ভিতরে প্রবেশ করে অফিসের আলমারিসহ বিভিন্ন ড্রয়্যারে থাকা প্রায় নগদ ৩০ হাজার টাকা চুরি করে। টিএমএসএস’র মচমইল বাজার শাখার ব্যবস্থাপক মোনতেজার জানান, দিনে বিদ্যুৎ না থাকার কারণে অনেক রাত পর্যন্ত কম্পিউটারে কাজ করে অফিসের লোকজন। তারা চলে গেলেই চোরেরা অফিসের জানালার গ্রিল কেটে অফিসে থাকা নগদ ৩০ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে যায়। এছাড়াও মচমইল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুইটি কক্ষের তালা ভেঙে চুরির চেষ্টা চালানো হয়। এর আগের দিন মঙ্গলবার সকাল ৯টার দিকে টিএমএসএস’র লোন অফিসার ও ক্যাশিয়ারের বাসার তালা ভেঙে সাড়ে ৩ ভরি স্বর্ণালংকারসহ নগদ ২০ হাজার টাকা চুরি করে নেয়া হয়। এছাড়াও গত সপ্তায় মচমইলের আশা এনজিও’র এবিএম রফিকুল ইসলামের ১শ সিসি বাজাজ সিটি মোটরসাইকেল চুরি করে চোরেরা। একের পর এক চুরির ঘটনার এলাকার সাধারণ মানুষসহ স্থানীয় দোকানদারদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসীর ধারনা মচমইল এলাকায় মাদকসেবীদের দৌরাত্ম বৃদ্ধি পাওয়ায় এমন ঘটনা ঘটতে পারে।
এ ব্যাপারে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সেলিম হোসেন জানান, ঘটনাটি শুনেছি এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শনের জন্য পুলিশ পাঠানো হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।