বাগমারায় টমেটো চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক

আপডেট: জানুয়ারি ৫, ২০১৭, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

রাশেদুল হক ফিরোজ, বাগমারা



রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় টমেটো চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক। আগের বছরের তুলনায় চলতি মৌসুমে বাগমারা উপজেলায় অনেক কম হেক্টর জমিতে টমেটোর চাষাবাদ হয়েছে। গত মৌসুমে টমেটো চাষে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছেন। অনেকের উৎপাদন খরচ তুলতে পারে নি। খরচ না উঠায় চলতি মৌসুমে টমেটো চাষে আগ্রহ হারিয়েছে কৃষক।
বাগমারা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলায় ২২০ হেক্টর জমিতে টমেটোর চাষ করা হয়েছে। গত মৌসুসে ২৪০ হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করা হয়েছিল। টমেটো চাষে লোকসানের কারণে চাষে আগ্রহ হারাচ্ছে কৃষক। লোকসানের কারণে চলতি মৌসুমে টমেটো চাষে আগ্রহ হারানোর ফলে কৃষকরা অন্য আবাদের দিকে ঝুঁকেছেন।  গোয়ালকান্দি ইউনিয়নের পলাশী গ্রামের মুঞ্জুর রহমান, আব্দুস সালাম, আবু তাহের, হামিরকুৎসা ইউনিয়নের রায়াপুর গ্রামের রহিদুল ইসলাম, তরিফ উদ্দিন, শাহিন জানান, গত মৌসুমে টমেটো চাষ করে বীজের কারণে উৎপাদন ভাল না হওয়ায় এবং দাম কম থাকার কারণে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়া যায় নি। আলোকনগর গ্রামের মোস্তফা জামান বলেন, গত মৌসুমে শীতের মধ্যে অনেক কষ্ট করে টমেটো খেতের পরিচর্যা করেও দাম না থাকার কারণে লাভের মুখ দেখা যায় নি। গতবারের ক্ষতির কারণে চলতি মৌসুমে টমেটোর আবাদ করা থেকে বিরত রয়েছেন বলে ওই সমস্ত কৃষকরা জানিয়েছেন। এছাড়াও পলাশী গ্রামের মৃত শরাফতুল্লাহের ছেলে পলান আহমেদ জানান, চলতি মৌসুমেও প্রথমে আট কাঠা জমিতে টমেটো চাষ করে বীজের কারণে ফলন না হওয়ায় পুনরায় অপর তিনকাঠা জমিতে টমেটোর চাষাবাদ করা হয়। সেখানেও তিনি আলোর মুখ দেখতে পাচ্ছেন না বলে জানান। একই গ্রামের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে আবুল হোসেন জানান, দশ কাঠা জমি লিজ নিয়ে প্রায় দশ হাজার টাকা খরচ করে টমেটোর চাষ করে অনেক পরিচর্যা করেও ভাল উৎপাদন হয় নি। বীজ ভাল না হওয়ায় এমন ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তিনি জানান, বীজ কিনে প্রথমে তা জমিতে বপন করে গাছ বের হবার পর তা ভাল ভাবেই রোপণ করা হয়েছিল। কিন্ত আশানুরুপ ফলন হয় নি। তবে বাজার দর ভাল রয়েছে বলে জানান তিনি।
কৃষকরা জানান, কম সময় এবং কম খরচে বেশি লাভবান হওয়ার জন্য উপজেলার বিভিন্ন স্থানে কৃষকরা টমেটো চাষ করছেন। চারা রোপনের প্রায় তিন মাস পর থেকেই খেত থেকে টমেটো তুলে বাজারে বিক্রি করা যায়। এক বিঘা জমিতে প্রায় ২০/২৫ হাজার টাকা খরচ হলেও ওই ক্ষেত থেকে প্রায় এক লাখ টাকার বেশি টমেটো বিক্রি করা যায় বলে কৃষকরা জানান। কাঠা প্রতি একশ চারা রোপণ করে প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় তিন হাজার চারা রোপণ করা হলে প্রতিটি চারায় ১০/১২ কেজি টমেটো পাওয়া যায়। কৃষক হাসানুজ্জামান ও আব্দুল মান্নান জানান, অধিক লাভের আশায় গত প্রায় সাত বছর ধরে টমেটো চাষ করছেন। কিন্ত গত মৌসুমে দাম কমের কারনে লাভবান হতে পারেন নি বলে চলতি মৌসুমে টমেটো চাষ করেন নি তারা।
বাগমারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রাজিবুর রহমান গতবারের চেয়ে চলতি মৌসূমে টমেটো চাষের জমির পরিমাণ কমে যাওয়ায় কারণ হিসেবে জানান, কৃষকরা টমেটো চাষের পরিবর্তে শরিষা বা অন্য আবাদ বেশি করছেন। তবে চলতি মৌসুমে টমেটোর বাজার দর ভাল থাকায় কৃষকরা লাভবান হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।