বাগমারায় ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্যের স্বামী গ্রেফতার

আপডেট: মার্চ ১১, ২০১৭, ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ

বাগমারা প্রতিনিধি



রাজশাহীর বাগমারায় ধর্ষণের অভিযোগে ইউপি সদস্যের স্বামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ (৩৩) নিজেই বাদী হয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে ইউপি সদস্যের স্বামী আবদুল আহাদ ওরফে হবলকে (৪৫) আসামি করে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন।
বাগমারা থানার মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ২ মার্চ সকাল সাড়ে ১১টার দিকে উপজেলার ঝিকরা ইউনিয়নের নামকাম গ্রামের জনৈক ব্যক্তির স্ত্রী একই উপজেলার মাড়িয়া ইউনিয়নের কাঁঠালবাড়ী গ্রামের ইউপি সদস্য রেবেকা বেগমের স্বামী দাদন ব্যবসায়ী আবদুল আহাদ ওরফে হবলের কাছে দাদনের টাকা নিতে আসে। আবদুল আহাদ হবল ওই গৃহবধূ টাকা দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে পার্শ্বে একটি বাড়িতে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে। ওইদিন টাকা না দিয়ে ৯ মার্চ বিকেলে টাকা দেয়ার কথা বলে হবল ওই গৃহবধূকে সেখান থেকে ফিরিয়ে দেয়। গৃহবধূ ওই টাকার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে হবলের কাছে গেলে হবল তাকে ধাক্কা দিয়ে তাড়িয়ে দেয়। গৃহবধূ হবলের অহেতুক আচরনে ক্ষুদ্ধ হয় এবং কান্নাকাটি শুরু করে। গৃহবধূর কান্নাকাটি দেখে এলাকার লোকজন জমায়েত হয়ে বিষয়টি জানতে পারে। ঘটনাটি এলাকার লোকজন মুঠোফোনে বাগমারা থানায় অবহিত করলে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে ধর্ষণের অভিযোগে হবলকে গ্রেফতার ও গৃহবধূকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে। রাতেই গৃহবধূ নিজেই বাদী হয়ে ধর্ষণের অভিযোগে দাদন ব্যবসায়ী হবলকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করে।
এ ব্যাপারে বাগমারা থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ জানান, ধর্ষণের অভিযোগে থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ওই ঘটনায় ধর্ষককে গ্রেফতার করেছ্।ে গতকাল শুক্রবার আদালতের মাধ্যমে ধর্ষক আবদুল আহাদ হবলকে জেলহাজতে প্রেরণ করা হচ্ছে বলে তিনি জানিয়েছেন।