বাগাতিপাড়া মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার || সুইসাইড নোট উদ্ধার

আপডেট: এপ্রিল ৭, ২০১৭, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ণ

নাটোর অফিস ও বাগাতিপাড়া সংবাদদাতা


নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রশিদুন্নবী বেফিনের (৬৫) ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন থেকে তার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এসময় একটি চিরকুটে সাইসাইড নোট উদ্ধার করেছে পুলিশ।
নিহত রশিদুন্নবী বেফিন উপজেলার শাইলকোনা গ্রামের খন্দকার আফছার আলীর ছেলে। মানসিক দুরচিন্তায় তিনি আত্মহত্যা করতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে পুলিশ।
পুলিশ ও এলাকাবাসীরা জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের সহকারী পিওন শাবেরা বেগম অফিস খুলে পরিষ্কার করার জন্য তিনতলায় যান। সেখানে গিয়ে রুমের মধ্যে গ্রিলের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার রশিদুন্নবী বেফিনের মরদেহ দেখতে পান। এসময় তিনি বিষয়টি উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আবুল হোসেন আকুলকে জানান। আকুল ঘটনাস্থলে গিয়ে উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা আহসান হাবিব জিতুকে জানান। তিনি গিয়ে পুলিশে খবর দিলে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।
এসময় পাশেই রাখা টেবিলের ওপর থেকে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদের উপজেলা শাখার প্যাডে লেখা চিঠি পেয়েছে পুলিশ। ওই চিঠিতে মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডারের অফিসিয়াল সীল সম্বলিত লেখা রয়েছে ‘আমি মো. রশিদুন্নবী এই মর্মে স্বীকার করিতেছি যে, আমার বুকে দারুন ব্যাথা। আমি সহ্য করিতে না পারিয়া মৃত্যুর পথ বেছে নিলাম। আমার মৃত্যুর জন্য আমার সংসদের কেহ দায়ী নহে। দয়া করে প্রশাসন আমার সংসদের কাউকে দায়ী করবেন না। আমার শরীর খারাপ বেশি লিখতে পারলাম না। ইতি- মো. রশিদুন্নবী, ৫/৪/২০১৭।’
পুলিশ আরো জানিয়েছে, নিহতের মাথার বাম পাশে আঘাতের চিহ্ণ রয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে কীটনাশকের বোতল উদ্ধার করা হয়েছে। এদিকে কমান্ডার বেফিনের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের সন্ধান পাচ্ছে না পুলিশ।
এদিকে খবর পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন নাটোর-১ আসনের সাংসদ অ্যাড. আবুল কালাম, উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত ইউএনও আহসান হাবিব জিতু, নাটোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খাইরুল আলম।
এ ব্যাপারে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খাইরুল আলম জানান, এক দিকে গলায় রশি দিয়ে ঝুলিয়ে থাকা অন্যদিকে লাশের পাশে কীটনাশকের বোতল বিষয়টি অস্বাভাবিক। উদ্ধারকৃত চিঠি যাচাই-বাছাইয়ে প্রেরণ করা হবে। তবে এটি আত্মহত্যা নাকি হত্যাকা- তা তদন্তের পর নিশ্চিত হওয়া যাবে।
রশিদুন্নবী বেফিনের স্ত্রী সুফিয়া বেগম বলেন, গত কয়েক দিন ধরে মন খারাপ এবং মানসিক দুষচিন্তায় ছিলেন তিনি। মাঝে মধ্যেই বলতেন তিনি আত্মহত্যা করবে।  কি কারণে আত্মহত্যা করবে জিজ্ঞাসা করলে কিছুই বলতেন না। বুধবার সকালে শাইলকোনা বাড়ি থেকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের উদ্দ্যেশে বের হয়। এরপর রাতে আর বাড়ি ফিরে নি। তিনি আরো বলেন, সকালে ডেপুটি কমান্ডারের মাধ্যমে তার মৃত্যুর খবর জানতে পেরেছি।
এ বিষয়ে বাগাতিপাড়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মনিরুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যা করতে পারে এমন ধারণা করা হচ্ছে। তাছাড়া তার সুইসাইড নোটে সে লিখে গেছে আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। তবে ময়নাতদন্ত হলে বিস্তারিত বলা যাবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ