বাগাতিপাড়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বিদ্যুৎ চলে গেলে টর্চের আলোই ভরসা

আপডেট: অক্টোবর ১৬, ২০২১, ৮:৪৬ অপরাহ্ণ


খাদেমুল ইসলাম, বাগাতিপাড়া :


বিদ্যুৎ চলে গেলে অন্ধকারে ডুবে থাকে নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। বর্তমান ৩১ শয্যা বিশিষ্ট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জন্য জেনারেটরের ব্যবস্থা নেই, তবে সৌরবিদ্যুৎ থাকলেও তা এখন বিকল। রাতে বিদ্যুৎ চলে গেলে চিকিৎসক ও সেবীকাদের কাজ চালাতে হয় মোবাইল অথবা টর্চের আলোর সাহায্যে। বিকল্প ব্যবস্থা নেই, ফলে বিদ্যুৎ চলে গেলে হাসপাতালের পুরুষ-মহিলা দুটি ওয়ার্ডই অন্ধকার থাকে। এতে দীর্ঘদিন ধরে চরম ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে ভর্তিথাকা রোগীদের।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, জেনারেটর না থাকায় বিদ্যুৎ চলে গেলে হাসপাতালে আলোর জন্য বিকল্প হিসেবে সৌরবিদ্যুৎ ব্যবহার হতো। কিন্তু তিন মাস আগে সেটিও নষ্ট হয়ে যাওয়ায় এখন আর ব্যবহার করা যাচ্ছে না। তাই অন্ধকারেই থাকতে হচ্ছে রোগীদের। তবে রোগীর আত্মীয়-স্বজনরা মোবাইলে আলো জ্বালীয়ে বা টর্চ লাইটের আলো ব্যবহার করে থাকেন। আর নার্স ও চিকিৎসকরা টর্চ লাইটের আলো দিয়ে কাজ চালিয়ে নেন।

রোগীর স্বজন উপজেলার মুরাদপুর গ্রামের রাজিয়া বেগম বলেন, ৬ দিন থেকে তিনি তার মাকে নিয়ে এই হাসপাতালে আছেন। দিনের বেলা বিদ্যুৎ না থাকলে গরমে অস্থির হয়ে পড়তে হয়। আবার রাতের বেলায় অন্ধকারে মোবাইলের আলো জ্বালিয়ে থাকতে হয়।

স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রতন কুমার সাহা জানান, তিনি হাসপাতালে যোগদান করার আগে থেকে এঅবস্থা ছিলো। বিষয়টি নিয়ে জেলা সিভিল সার্জনের সাথে কথা বলে কাজ হয়নি। নতুন ভবনের কাজ শেষ হলে সমস্যাটা লাঘপ হবে।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রিয়াংকা দেবী পাল বলেন, আমার জানা মতে বর্তমানে হাসপাতালটিতে জেনারেটরের কোনো বরাদ্দ নেই। তবে নতুন ভবনটির কাজ প্রায় শেষ, অল্পদিনের মধ্যেই হাতে পাওয়া যাবে। তখন এই সংক্রান্ত আর কোনো সমস্যা থাকবেনা।