বাঘায় পদ্মা নদীর ক্যানেলের উপর বাঁশের সাঁকোয় ঝুঁকি নিয়ে পারাপার

আপডেট: জুন ১৪, ২০২৪, ৪:৪১ অপরাহ্ণ


আমানুল হক আমান, বাঘা (রাজশাহী) :


রাজশাহীর বাঘা উপজেলার শিমুলতলাঘাটে পদ্মা নদীর ক্যানেলের উপর বাঁশের সাঁকো দিয়ে প্রতিদিন শত শত মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পারাপার হয়। এখানে একটি ব্রিজ নির্মাণের দীর্ঘদিনের দাবি আজও বাস্তবায়ন হয়নি।

জানা গেছে, শিমুলতলা ঘাটে একটি ব্রিজ নির্মাণ করা হলে চকরাজাপুর ইউনিয়নের চকরাজাপুর, কালিদাসখালী, লক্ষিনগর, দাদপুর, উদপুর, পলাশি ফতেপুর গ্রামের মানুষ অতি সহজে উপজেলা সদরের সাথে যোগাযোগ করতে পারবে। গ্রামের মানুষ বর্ষা মৌসুমে নৌকা আর শুকনো মৌসুমে বাঁশের সাঁকো, আবার কখনো পায়ে হেঁটে পারাপার হতে হয়।

বর্ষা মৌসুমে নৌকায় পার হতে গিয়ে অনেকেই পদ্মায় নিখোঁজ হয়েছেন। অনেকে মারাও গেছেন।
চকরাজাপুর ইউনিয়নে ৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও দুটি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থাকলেও কোনো উচ্চ মাধ্যমিক কলেজ নেই। ফলে তারা মাধ্যমিক পাশ করার পর যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকার কারণে অনেকেই লেখাপড়া বন্ধ করে দেয়। যারা লেখাপড়া করে তাদের অনেক কষ্টে উপজেলা সদরে আসতে হয়।

এ এলাকার মানুষের সিংহভাগ জমি চাষাবাদ করেন। তারাও অনেক কষ্টে আবাদ করে। এখানে সবজি চাষে বিখ্যাত। এখানে বেগুন, পটল, আলু, করলা, শিম, মুলা, গাজর, টমেটো, বরবটি, মসলা জাতীয় ফসল- মরিচ, হলুদ, পিয়াজ, রসুন, আদা; ফলের মধ্যে আম, বরই, পেঁয়ারার আবাদ হয়।

এলাকার চাহিদা মিটিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এসব কৃষিপণ্য বিক্রি হয়। যোগাযোগ ব্যবস্থা ভাল না থাকায় এই এলাকার উৎপাদিত কৃষিপণ্য খুব কম দামে নিজ এলাকায় ফড়িয়াদের কাছে বিক্রি করতে হয়। অনেক দিন আগে থেকে এ এলাকার মানুষ একটি ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন।

এ বিষয়ে চকরাজাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল আযম বলেন, সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ও রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) আসনের সংসদ সদস্য শাহরিয়ার আলমের সহযোগিতায় বিদ্যুৎ, পাকা রাস্তা, স্কুলের ব্যাপক উন্নয়ন করা হয়েছে। তবে একটি ব্রিজের জন্য আবেদন করা হয়েছে।

ব্রিজটি নির্মাণ হলে এ এলাকার মানুষের দুর্ভোগ লাঘব হবে। ব্রিজের অভাবে উৎপাদিত কৃষিপণ্য সঠিকভাবে বাজারজাত করা সম্ভব হয় না। পদ্মা নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণ করা হলে এ এলাকার মানুষ কৃষিপণ্য সঠিকভাবে বাজারজাতকরণের লক্ষ্যে সাধারণ মানুষ নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে পারবে।

এ ব্যাপারে বাঘা উপজেলা প্রকৌশলী বেলাল হোসেন বলেন, স্থানীয় সাংসদ ও সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সহযোগিতায় খায়েরহাট হালিম মাস্টারের ঘাটে ৬০০ মিটার একটি ব্রিজের জন্য কাগজপত্র মন্ত্রনালয়ে অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হয়েছে।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ