বাঘায় ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ হল ঘষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর বিয়ে

আপডেট: আগস্ট ২১, ২০১৭, ১২:৪৯ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার হস্তক্ষেপে ৬ষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী শিরিনা আক্তার (১৩) বাল্য বিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। গত শনিবার রাত ১১ টায় বিয়ের প্রস্তুতিকালে কনের বাড়িতে অভিযানে চালিয়ে এই বাল্য বিয়ে বন্ধ করে দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুল ইসলাম।
জানা যায়, গত শনিবার দুপুরে উপজেলার বাউশা ইউনিয়নের নওটিকা উত্তর জামে মসজিদ পাড়া এলাকার জিয়ারুল ইসলামের মেয়ে ও নওটিকা উচ্চবিদ্যালয়ে ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী শিরিনা আক্তারের (১৩) সাথে একই গ্রামের আশাদুল ইসলামের (২১)  সাথে বিয়ের প্রস্তুতি চলছিল। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুল ইসলাম গোপন সংবাদের ভিক্তিতে অভিযান চােিলয় কনেও বরসহ নিকট আত্মীয়দের আটক করেন। পরে কনের প্রাপ্ত বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিতে পারবে না মর্মে সাড়ে ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে। পরে এই বিয়ে রেজিস্ট্র্রি করতে আসা কাজী শাহাদুল ইসলামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রেজিস্ট্র্রি বই জব্দ করা হয় বলে জানান ইউএনও। এ সময় বাউশা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শফিকুর রহমান শফিক, বাঘা শাহদৌলা ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ নবাব আলীসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ