বাঘায় উপজেলা চেয়ারম্যানসহ ১৪ জন অস্ত্র মামলার আসামি

আপডেট: নভেম্বর ২, ২০১৬, ১২:১৯ পূর্বাহ্ণ


বাঘা প্রতিনিধি
রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌর এলাকায় বিদেশি অস্ত্র ও জিহাদী বইসহ দুই জামায়াত নেতা আটকের পর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা জামায়াতের আমির জিন্নাত আলীসহ ১৪ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বাঘা থানার পুলিশ বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করেন। তবে মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে এই মামলার আসামি এনামুল হক (২৪) নামের ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সে আড়ানীর পৌরসভার গোচর এলাকার ইন্নত আলীর ছেলে।
মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাত ৯টার সময় উপজেলার আড়ানী পৌর এলাকার বাসিন্দা ও পৌর জামায়া সূরা সদস্য বেলাল উদ্দিনেরর বাড়িতে গোপন বৈঠক করছিল জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালায়। জামায়াতের সূরা সদস্য বেলাল উদ্দিন ও আড়ানী পৌর জামায়াতের আমির অধ্যাপক মুনিরুল আজম জিঞ্জুকে বিদেশি পিস্তল, তিন রাউন্ড গুলি, একটি ম্যাগজিন ও জিহাদী বইসহ গ্রেফতার করে।
এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে রক্ষা পান উপজেলা জামায়তের আমির ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা জিন্নাত আলীসহ ২০১৪ সালে পুলিশের হাত থেকে অস্ত্র কেড়ে নেয়া ও মারপিট মামলার এক নম্বর আসামি এবং উপজেলা জামায়াতের সেক্রেটারী আব্দুল¬াহ আল মামুন নহু।
বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী মাহমুদ বলেন, সোমবার রাতে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাওলানা জিন্নাত আলীসহ আড়ানী পৌরসভার চকরপাড়া গ্রামে ও পৌর জামায়াতের সূরা সদস্য বেলাল উদ্দিননের বাড়িতে ২৫ থেকে ৩০ জন উপজেলা ও পৌর জামায়াতের নেতাকর্মী বৈঠক করছিল। এ সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালালে  দুজন ব্যতিত সবাই পালাতে সক্ষম হয়। পরে তাদের কাছ থেকে আগ্নেয়াস্ত্র, গুলি ও জিহাদী বই উদ্ধার করা হয়। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে আটক দুই জামায়াত নেতাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে বলে ওসি জানান।