বাঘায় চোর সন্দেহে যুবককে খুঁটিতে বেঁধে মারপিট: আটক ১

আপডেট: মার্চ ২৩, ২০২০, ১২:০৫ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘায় চোর সন্দেহে সেলিম হোসেন নামের এক যুবককে বাড়ি থেকে তুলে এনে বিদ্যুতের খুঁটিতে বেঁধে বেধড়ক মারপিট করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল রোববার সকালে উপজেলার আটঘরি এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনাস্থল থেকে মনিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও স্থানীয়দের সহায়তায় সেলিমকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত খোকন উদ্দিন বশিরকে আটক করেছে পুলিশ।
অভিযোগে জানা গেছে, শনিবার দিবাগত রাতে উপজেলার আটঘরির চেয়ারম্যানপাড়া গ্রামের আতিয়ার রহমানের ছেলে খোকন উদ্দিন বশিরের বাড়ির রান্না ঘরের জানালা ভেঙে একটি গ্যাসের চুলা ও সিলিন্ডার চুরি হয়। এই চুরি সন্দেহে সকাল ৭টার দিকে সেলিম হোসেনকে প্রতিবেশি খোকন উদ্দিন বশির তার ভাই রাঙ্গা মাস্টার, তহিদুল ইসলাম, ইয়াজুল ইসলাম টুনা আহম্মেদ জোর পূর্বক তুলে চেয়ারম্যানপাড়া মোড়ে নিয়ে যায়। সেখানে তারা সেলিমকে বিদ্যুতের খুঁটিতে রশি দিয়ে বেঁধে এলোপাথাড়ি মারপিট করে চুরির দায় স্বীকার করতে বলা হয়।
খবর পেয়ে সেলিমের আত্মীয়সহ মনিগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম, গ্রাম পুলিশ আবু বক্কর সিদ্দিক তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। গতকাল দুপুরে সেলিমের মা হাফিজা বেগম বাদি হয়ে বাঘা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ এ অভিযোগের প্রধান অভিযুক্ত খোকন উদ্দিন বশিরকে বাঘা-আড়ানী সড়কের থানা মোড় থেকে আটক করে।
মনিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক সাইফুল ইসলাম বলেন, আমি সেলিমকে বিদ্যুতের খুঁটিতে বাঁধা অবস্থায় পাই নি। তবে তাকে মারপিট করার ঘটনা সঠিক। সে একজন মাদকসেবী। এ কারণে চোর সন্দেহে তাকে মারপিট করা হয়েছে। তবে তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, এ অভিযোগের প্রধান অভিযুক্ত খোকন উদ্দিন বশিরকে আটক করা হয়েছে। অন্য অভিযুক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ