বাঘায় ছাত্রীর সঙ্গে শিক্ষকের অশালীন আচরণের ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি

আপডেট: সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৭, ১:৩৭ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘা উপজেলার খায়েরহাট উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীর সঙ্গে একই বিদ্যালয়ের ধর্ম বিষয়ের শিক্ষকের অশালীন আচরণের জন্য আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বাঘা উপজেলায় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় তদন্তপূর্বক ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।
এছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা গত সোমবার বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়ে তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। তদন্ত কমিটির প্রধান করা হয়েছে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মঞ্জুর রহমানকে। ওই কমিটিকে তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে রির্পোট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে জমা দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
জানা গেছে, বাঘা উপজেলার খায়েরহাট উচ্চবিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রীর সঙ্গে গত ২৯ আগস্ট একই বিদ্যালয়ের ধর্ম বিষয়ের শিক্ষক আবদুল আওয়াল অশালীন আচরণ করেন। এ বিষয়ে ওই ছাত্রী নিজে বাদী হয়ে প্রধান শিক্ষক বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে গত ৭ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি, প্রধান শিক্ষক, শিক্ষক প্রতিনিধিদের নিয়ে সভায় শিক্ষক আবদুল আওয়ালকে শোকজ করে সাত দিনের কার্যদিবসের মধ্যে নোটিশের জবাব দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এছাড়া বিদ্যালয়ের ধর্ম বিষয়ের শিক্ষক আবদুল আওয়ালের অশালীন আচরণের বিচারের দাবিতে গত রোববার (১০ সেপ্টেম্বর) খায়েরহাট বাজারে মানবন্ধন করে বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও এলাকাবাসী।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মঞ্জুর রহমান বলেন, আমার বিদ্যালয়ের এক ছাত্রীর সঙ্গে ধর্ম বিষয়ের শিক্ষক অশালীন আচরণ করেছে বলে আমার কাছে লিখিত অভিযোগ আসে। এ অভিযোগের ভিত্তিতে ধর্ম বিষয়ের শিক্ষককে বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সাত দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার পক্ষ থেকে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছে। আমরা তদন্ত করে ১৫ দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিবো।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হামিদুল ইসলাম বলেন, ছাত্রী শিক্ষক বিষয়ে আমার কাছে কেউ কোন অভিযোগ করে নি। আমি পত্রিকার মাধ্যমে জেনে তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছি। এছাড়া আইনশৃঙ্খলা সভায় ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ