বাঘায় নিয়ম না মেনে ইটভাটা হুমকির মুখে পরিবেশ

আপডেট: জানুয়ারি ৪, ২০২০, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ

আমানুল হক আমান, বাঘা


বাঘা উপজেলায় নিয়মনীতি না মেনে গড়ে তোলা হয়েছে ইটভাটা সোনার দেশ

রাজশাহীর বাঘা উপজেলার বাজুবাঘা ইউনিয়নের তেপুকুরিয়া গ্রামে চাইনা ইটভাটা ও চিপনি ইটভাটা নিয়ম না মেনে নির্মাণ করা হয়েছে। এই দুটি ইটভাটার কালো ধোঁয়ায় এলাকার তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, আমসহ বিভিন্ন ফসল হুমকির মুখে পড়েছে। এ বিষয়ে এলাকার শতাধিক মানুষ স্বাক্ষরিত একটি অভিযোগ জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে দেয়া হয়েছে। তারপরও এ বিষয়ে কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ না করায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি হয়েছে।
গতকাল শুক্রবার সরেজমিনে দেখা গেছে, উপজেলার তেপুকুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উচ্চ বিদ্যালয়, ভোকেশনাল বিদ্যালয়ের পাশে ও তিন ফসলি জমিতে স্থানীয় মৃত চেরমান মন্ডলের ছেলে আলাউদ্দিন সরকারি আইন অমান্য করে চাইনা ইটভাটা গড়ে তুলেছেন। এ দুটি ইটভাটার কারণে শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠানে যাতায়াত করতে সমস্যায় পড়তে হচ্ছে। এছাড়া ইটভাটার ধোয়ায় আম ও বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। ফলে এই ইটভাটা বন্ধসহ ভাটা মালিকের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন।
সরকারিভাবে ইটভাটা তৈরির জন্য বিভিন্ন নিয়ম-কানুন থাকলেও এ দুটি ইটভাটা তৈরির ক্ষেত্রে সরকারি কোনো নিয়ম অনুসরণ করা হয়নি বলে জানান তেপুকুরিয়া গ্রামের অভিযোগকারীরা। তারা জানান, ইটভাটা তৈরির জন্য যে নিয়ম রয়েছে তারা সবগুলো বাস্তবায়ন করা সম্ভব হচ্ছে না। এছাড়া সরকারি নীতিমালা না মেনে গড়ে ওঠা ইটভাটার বিষাক্ত ধোঁয়ায় এলাকার গাছপালা মরে যাচ্ছে এবং বিষাক্ত হয়ে উঠেছে আবাদি জমির মাটি।
চাইনা ইটভাটার ম্যানেজার জহুরুল হক বলেন, আমরা পরিবেশ অধিদফতর ও সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে ইটভাটা অনুমোদনের ছাড়পত্র এবং কাগজপত্র নিয়ে চালাচ্ছি।
বাজুবাঘা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ড আ’লীগের সভাপতি ও তেপুকুরিয়া গ্রামের বাবুল ইসলাম বলেন, এই দুটি ইটভাটা ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় হওয়ায় ধোঁয়ায় আশপাশের পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে। এ দুটি ইটভাটার মালিক প্রভাবশালী হওয়ায় অনেকটা দেখেও না দেখার ভান করে আছে প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদফতর। তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কয়েক গজের মধ্যে এ দুটি ইটভাটা। এ ইটভাটার তাপে আম ও নারিকেল গাছের ফল ছোট হয়ে যাচ্ছে। গাছগুলো লাল হয়ে যাচ্ছে। লোকালয়ের মধ্যে থাকা ইটভাটার কারণে ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। মাঝে মাঝে পরিবেশ অধিদফতরের লোকজন আসেন। কিন্তু কী করেন জানিনা।
এদিকে উপজেলার আড়ানী ইউনিয়নের ঝিনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশে ইটভাটা হওয়ায় পরিবেশ মারাত্মকভাবে দূষিত হচ্ছে। এ বিষয়েও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এলাকাবাসী দাবি জানিয়েছেন।
চিপনি ইটভাটার মালিক আবদুল মান্নান বলেন, আমার ইটভাটার পরিবেশ অধিদফতরের অনুমতি রয়েছে।
এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিব।
উল্লেখ্য, তেপুকুরিয়া চাইনা ইটভাটার মালিক আলাউদ্দিনকে ঢাকার মতিঝিল এলাকার মধুমতি ব্যাংক লি. থেকে ১৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা ঋণের দায়ে গত ২৩ ডিসেম্বর গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বর্তমানে সে জেল হাজতে রয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ