বাঘায় প্রতিবন্ধী স্কুলে পাঠদানের বাধা দেয়ার অভিযোগে দাবিদার পরিচালকসহ আটক ৩

আপডেট: জানুয়ারি ১৩, ২০২০, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘায় প্রতিবন্ধী স্কুলে পাঠদান ও বিভিন্ন কাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে দাবিদার পরিচালকসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১১টার দিকে তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশা স্কুল থেকে তাদের আটক করা হয়েছে।
জানা যায়, বাঘা উপজেলার বাউসা হেদাতীপাড়া গ্রামের প্রতিবন্ধী মজিবুর রহমান রুজদার ২০০৮ সালে নিজের জমির উপর একটি টিনসেড ঘড় নির্মাণ করে বাঘা-আড়ানী সড়কের মাঝামাঝি তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থার যাত্রা শুরু করেন। পরে প্রতিষ্ঠানটি স্কুল হিসেবে গড়ে তুলেন। সরকারি গঠনতন্ত্র অনুযায়ী প্রতিষ্ঠানটি পরিচালিত হচ্ছে। কিন্তু রুজদার প্রতিষ্ঠানের সরকারি নিয়ম অনুয়ায়ী পরিচালক হতে না পেরে প্রতিষ্ঠানের পাঠদানসহ বিভিন্ন পরিচালনা কাজে বাধা দেন। এ অভিযোগে ৩ জনকে বাঘা থানার পুলিশ আটক করে।
আটককৃতরা হলেন-তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশা স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা দাবিদার পরিচালক প্রতিবন্ধী মজিবুর রহমান রুজদার, সহকারি প্রধান শিক্ষক দাবিদার আবুল কালাম ও অফিস সহকারি দাবিদার হানিফ আহম্মেদ।
এ বিষয়ে তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশা স্কুলের প্রধান শিক্ষক সুন্দরী খাতুন বলেন, বিধি মোতাবেক শিক্ষক নিয়োগের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হচ্ছে। রুজদার এ প্রতিষ্টানের একজন মাত্র দাতা সদস্য। দাতা সদস্য হয়ে নিয়মবর্হিভুতভাবে প্রতিষ্ঠানের পরিচালক হওয়ার চেষ্টা করছেন এবং প্রতিটি কাজে বাধা দিচ্ছেন। আমি নিরুপায় হয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর পুলিশ তাদের আটক করেছে।
বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, একাধিক অভিযোগের ভিত্তিতে রুজদারসহ ৩ জনকে আটক করা হয়েছে।
তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশা স্কুলে সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, এ বিষয়ে আমার কিছুই জানা নেই।
উল্লেখ্য, ২০১০ সালের ২৫ মে সমাজ কল্যান মন্ত্রণালয় থেকে তেঁথুলিয়ায় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন সংস্থা প্রত্যাশা স্কুলের অনুমোদন হয়। যার রেজি নম্বর ৮৮০/১০। এ প্রতিষ্ঠানের একটিই মাত্র রেজিস্ট্রেশন নম্বর কিন্তু, দাবিদার ৩ জন। ইতোমধ্যে একই নামে দুটি প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলা হয়েছে। এর মূলরহস্য উদঘাটন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ