বাঘায় প্রাইভেটকারে আগুন II নগরীতে হরতালে মাঠে ছিল না বিএনপি-জামায়াত

আপডেট: অক্টোবর ২৯, ২০২৩, ১০:১৩ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক:


বিএনপি ও জামায়াতের ডাকা পৃথক হরতালে নগরীতে দেখা মিলেনি কোনো নেতার। রোববার (২৯ অক্টোবর) সকাল থেকে ছিল ঢিমেতালে হরতাল। রিকশা ও অটোরিকশা চললেও চলেনি দুরপাল্লার কোনো বাস। তবে জেলা ও উপজেলার বাসগুলো ছেড়ে যাচ্ছে।

রাজশাহীর বাঘা উপজেলায় একটি প্রাইভেটকারে আগুন দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। প্রাইভেটকারে থাকা কেউ হতাহত না হলেও গাড়িটি সম্পূর্ণ ভস্মিভূত হয়ে গেছে। রোববার (২৯ অক্টোবর) বেলা ১২টার দিকে বাঘা উপজেলার মনিগ্রাম ইউনিয়নের আটঘরিয়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

নগরীতে দেখা যায়, বেলা বাড়ার সাথে সাথে ফিরেছে চিরচেনা রূপে। সেই সাথে খোলা হয়েছে দোকানপাট। হরতালের দিন বিএনপি ও জামায়াতের কোনো পিকেটিং বা সভা-সমাবেশ করেনি। রাজশাহী মহানগরীর ব্যস্ততম জিরো পয়েন্ট, নিউমার্কেট, টার্মিনাল, লক্ষ্মীপুর, কোর্ট, রেলগেট, গণকপাড়া এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বিপুল সংখ্যক আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছে। সেই সাথে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন স্থানে অবস্থান নেয়।

এদিকে হরতালের প্রতিবাদে বিভিন্ন এলাকায় অবস্থান নিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীর। নগরীর কোর্ট, লক্ষীপুর, সাহেববাজার, সাগরপাড়া, তালাইমারী, বিনোদপুর, আমচত্বর এলাকায় অবস্থান নিয়েছে। এদিকে হরতালের প্রতিবাদে রোববার (২৯ অক্টোবর) মিছিল ও সমাবেশ করেছে মহানগর আওয়ামী লীগ। নগরীর সাহেববাজার জিরোপয়েন্টে থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আবারও একই স্থানে সমাবেশ করে তারা।

রাজশাহী থেকে দুরপাল্লার বাস না ছাড়লেও ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে যাত্রীদের নিয়ে ফিরেছে। এছাড়া সব ধরনের যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। একই সাথে রাজশাহী রেলস্টেশন থেকে নির্ধারিত সময়ের ট্রেনগুলো ছেড়ে গেছে। তবে দুরপাল্লা বাসের কর্মীরা বলছেন, যাত্রী না থাকায় বাস ছাড়া সম্ভব হয়নি। দুপুর থেকে বাস চলাচল স্বাভাবিক হবে।

রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপ আন্তজেলা কাউন্টারের টিকেট বিক্রয়কর্মী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, কাউন্টার খোলা ছিল সকাল থেকে। সকালে তেমন যাত্রী পাওয়া যায়রি।। যাত্রীরা ছোট ছোট যানবাহনে যাত্রা করছে। বগুড়া-রংপুরের বাসও ছাড়া হয়নি। এছাড়া পাবনা-কুষ্টিয়া-যশোর ও ফরিদপুরের বাসও ছেড়ে যায়নি। তবে লোকাল কিছু বাস ছাড়া হয়েছে। এর মধ্যে চাঁপাই-নওগাঁ-নাটোরের বাসগুলো চলছে। তবে দুপুরের পর থেকে আন্তজেলা সব বাস ছাড়া হয়েছে। সব রুটেই বাস ছাড়া হয়েছিল।

নগরীর নিউমার্কেট এলাকায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাচালক সাইফুল ইসলাম জানান, পরিবার ও সংসার আছে, একদিন ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা বন্ধ রাখলে খাবো কি? ঝুঁকি মাথায় নিয়ে তারপরেও অটো বের করি।

রাজশাহী সড়ক পরিবহন গ্রুপ কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান মুন্না জানান, মালিক সমিতি থেকে বাস ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে যাত্রী না থাকায় দুরপাল্লার বাস ছাড়েনি। তবে লোকাল বাসগুলো চলছে। বেলা বাড়ার সাথে সাথে দুরপাল্লার বাসও ছেড়েছে।

রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের ব্যবস্থাপক আবদুল করিম জানান, ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। সব ট্রেনগুলো সঠিক সময় ছেড়ে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে রাজশাহী রেল স্টেশন থেকে ট্রেন ছেড়ে গেছে। সকালে তিতুমীর, সাগরদাঁড়ি, বনলতা, মধুমতি এক্সপ্রেস ট্রেন ছেড়ে গেছে। দুপুরে কপোতাক্ষ, পদ্মা, ঢালারচর ও টুঙ্গিপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেন ছাড়া হয়েছে। এছাড়াও কমিউটার ট্রেনও চলাচল করছে।

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশ অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার জামিরুল ইসলাম বলেন, মেট্রোপলিটন এলাকায় কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। পোশাক ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী নগরজুড়ে কাজ করেছে।। হরতালে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেদিকে লক্ষ্য ছিল আমাদের। তারপরও আমরা সজাগ আছি।
এদিকে বাঘায় একটি প্রাইভেটকারে আগুন দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা।

আমাদের বাঘা প্রতিনিধি জানান, রাজশাহীর বাঘায় হরতালে পুলিশ সার্জনের গাড়িতে আগুন দিয়ে জ¦ালিয়ে দিয়েছে দূর্বৃত্তরা। রোববার (২৯ অক্টোবর) বেলা ১১টার দিকে বাঘা-চারঘাট মহাসড়কের মনিগ্রাম ইউনিয়নের আটঘরিয়া নামকস্থানে এই ঘটনা ঘটেছে।

জানা যায়, রাজশাহীতে কর্মরত পুলিশ সার্জন শহীদুজ্জামান রিপন তার স্ত্রীর বড় বোনকে নিয়ে প্রাইভেটকার নিয়ে শ্বশুরবাড়ি লালপুরে আসছিলেন। প্রাইভেটকার বাঘা-চারঘাট মহাসড়কের মনিগ্রাম ইউনিয়নের আটঘরিয়া নামকস্থানে পৌঁছলে দূর্বৃত্তরা তার পথরোধ করে গাড়ি ভাঙতে শুরু করে।

পুলিশ সার্জন গাড়ি থেকে নেমে আসার সাথে সাথে আগুন দিয়ে জ¦ালিয়ে দেওয়া হয়। মূহুর্তের মধ্যে গাড়িটি পুড়ে ভস্মিভূত হয়ে যায়। ঘটনাস্থলে পুলিশ যাওয়ার আগে দূর্বৃত্তরা চলে যায়। পুলিশ সার্জন শহীদুজ্জামান রিপন চারঘাট উপজেলার সারদা কুঠিপাড়া গ্রামের আবু বক্করের ছেলে বলে জানা গেছে।
উপজেলা নির্বাহী-কর্মকর্তা শারমিন আখতার তাৎক্ষণিক খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান ।

পুলিশ সার্জন শহীদুজ্জামান রিপন বলেন, কিছু বুঝে উঠার আগেই গাড়িতে আক্রমণ করে। গাড়ি থেকে বের হওয়ার সাথে সাথে আগুন দিয়ে জ¦ালিয়ে দেয়। গাড়ি পুড়ে গেল আমার চোখের সামনে কিছুই করতে পারলাম না।

এ বিষয়ে বাঘা থানার ওসি তদন্ত সবুজ রানা বলেন, ঘটনাস্থলে পৌঁছার আগেই পিকেটাররা পালিয়ে যায়। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ