বাঘায় বিয়ের পর প্রতিবন্ধীকে নির্যাতনের অভিযোগ

আপডেট: মে ২০, ২০১৭, ১২:০৮ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


দৃষ্টি প্রতিবন্ধী সুজন আলীর প্রতারণার স্বীকার হয়েছেন বলে অভিযোগ শারীরিক প্রতিবন্ধী রোজিনা খাতুন। গত বুধবার বিয়ের দাবিতে অনশন করেন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী প্রেমিক সুজন আলীর বাড়িতে। অবশেষে দুই লাখ টাকা দেনমোহরে স্থানীয় কাজী আশকান আলী তাদের বিয়ে করিয়ে দেন। বিয়ের পর রোজিনার উপর শুরু হয় শ^শুর শাশুড়ির নির্যাতন। এই নির্যাতনে সে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এলাকার লোকজন উদ্ধার করে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। এ ব্যাপারে রোজিনা বাদী হয়ে গত বৃহস্পতিবার রাতে বাঘা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।
রোজনা খাতুন বলেন, সুজনের বাবার মতামতে বিয়ে হলেও বাসর করতে দিবে না বলেই আমাকে নির্যাতন করা হয়েছে। তাই তাদের নির্যাতনে ঠাই হয়েছে হাসপাতালে।
স্থানীয় বিচ্ছাদ আলী বলেন, বিয়ের স্বীকৃতি না পাওয়া পর্যন্ত বুধবার সকাল থেকেই  সরের হাট গ্রামে প্রেমিক সুজনের বাড়িতে অনশন করেন রোজিনা।  অন্যথায় আত্মহত্যার পথ বেছে নেয়ারও হুমকি দেন। পরে পুলিশ যাওয়ার পর সুজনের বাবা বিয়েতে রাজি হয়। বিয়ের পরেই রোজিনাকে নির্যাতন করে সুজনসহ তার বাবা-মা। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ আলী মাহামুদ বলেন, প্রথমে মৌখিকভাবে ঘটনার জানার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে ছেলের পরিবারকে বোঝানোর পর সামাজিকভাবে তাদের বিয়ে হয়। তারপর ঘটনাস্থল থেকে চলে আসার পর মেয়ের শ^শুর শাশুড়ির নির্যাতনের শিকার হয়েছে মর্মে অভিযোগ পেয়েছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ