বাঘায় ভেস্তে যাচ্ছে কৃষকের কাছে থেকে গম ক্রয়

আপডেট: এপ্রিল ২৭, ২০২১, ৯:১৫ অপরাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি:


রাজশাহীর বাঘায় সরকারিভাবে কৃষকের কাছে থেকে গম ক্রয় ভেস্তে যাচ্ছে। খোলা বাজার দরের চেয়ে সরকারিভাবে নির্ধরণ করে দেয়া দাম কম হওয়ায় এমন ঘটনা ঘটতে যাচ্ছে।
উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এলাকায় বারবার মাইকিং করা হলেও কোন কৃষক আসছে না। তবে যারা ব্যবসার সাথে জড়িত তারাই আসছেন।
এ বিষয়ে স্থানীয় কৃষকরা বলছেন, প্রায় দুই মাস আগে জমি থেকে গম কাটা শেষে হয়েছে। এখন কৃষকের ঘরে গম প্রায় শেষ হয়ে গেছে। কৃষকরা ইচ্ছা করলেই গম দিতে পারবেনা। তারপরও উপজেলা সভাকক্ষে নির্বাহী কর্মকর্তা পাপিয়া সুলতানার সভাপতিত্বে ২৮ টাকা প্রতিকেজি দর হিসেবে গম ক্রয়ের লটারি অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন সহ গম ক্রয় কমিটির সদস্যরা।
বাজুবাঘা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান খন্দকার মনোয়ারুল ইসলাম মামুন বলেন, ধান-চালের মৌজুদ করে বাজার অস্থিতিশীল করে রেখেছেন কতিপয় অসাধু কিছু ব্যবসায়ীরা। তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান তিনি।
উপজেলা খাদ্যগুদাম র্কমর্কতা আশরাফুল আলম বলনে, করোনা সংকট ও কিছু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কারণে গত বছর গম ক্রয় করা সম্ভব হয়নি। এবারও একই অবস্থা। তবে এবছর ধানের প্রতি কেজি ২৭ টাকা হিসেবে সরকার নির্ধারন করে দিয়েছেন। গম পাওয়া না গেলেও ধান কৃষকের কাছে থেকে পাওয়া যাবে বলে আসা করছি।
উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা শামসুনাহার বলেন, প্রতি বারের ন্যায় মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) অভ্যান্তরীন খাদ্য শস্য সংগ্রহের জন্য উন্মুক্ত লটারি করা হয়েছে। ৪ হাজার ৬০০ জন কৃষকের মধ্যে ৫৮৫ জন কৃষকের নাম লটারিতে উঠেছে। প্রতিজন কৃষকদের কাছ থেকে ৩ টন করে ১ হাজার ৭৫৫ টন গম ২৮ টাকা কেজি হিসেবে ক্রয় করা হবে। তবে বাজারের চেয়ে সরকারিভাবে নির্ধারণ করা দাম কম হওয়ায় গম পাওয়া অনিশ্চিত হয়ে দাঁড়িয়েছে।