বাঘায় মারপিটে আহত দুই এতিম শিশুকে দেখতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

আপডেট: জুন ২৯, ২০১৭, ১২:৪৮ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘায় সন্ত্রাসীদের মারপিটে আহত এতিম খানার দুই শিশুকে ঈদের আগের দিন (২৫ জুন) দেখতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। গত ২৪ জুন উপজেলার সরেরহাট কল্যানী শিশু সদনের দুই শিশু ভিজিএফের গম নিয়ে এতিম খানায় ফিরছিল। এ সময় তাদের পথরোধ করে মারপিট করে আহত করে স্থানীয় সন্ত্রাসীরা। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় মোতালেব হোসেন নামের একজনকে পুলিশ ঈদের দিন রাতে নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে।
জানা যায়, উপজেলার সরেরহাট কল্যানী শিশু সদনের দুই শিশু রাশিদুল ইসলাম ও আসমাউল ইসলাম গড়গড়ি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ভিজিএফের গম নিয়ে এতিমখানায় ফিরছিল। এ সময় একই এলাকার রনি হোসেন, মোত্তালেব হোসেন, স্বাধীন আহম্মেদ, সেলিম হোসেন ও আলম হোসেন নামের ৫ সন্ত্রাসী এতিম শিশুদের উদ্দেশ্য উপহাস মূলক কথাসহ অশ্লীল ভাষায় গালি দেয়। এ সময় ওই দুই শিশু তাদের গালি দিতে বারণ করে। তাদের কথার কোন কর্ণপাত না করে বেশি করে গালাগালি শুরু করে এবং তর্কে জড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে আমের ডাল দিয়ে তাদের বেধড়ক মারপিট করে গুরুতর আহত করে। আহত অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। আহতদের দেখতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। এ সময় সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনার নির্দেশ দেন তিনি। ঘটনার দিনই সরেরহাট কল্যানী শিশু সদনের পরিচালক মুক্তিযোদ্ধা শামমুদ্দিন বাদী হয়ে বাঘা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলার অন্যতম অভিযুক্ত মোতালেব হোসেনকে পুলিশ ঈদের দিন (২৬ জুন) রাতে নিজ বাড়ি থেকে আটক করেছে।
সরেরহাট কল্যানী শিশু সদনের পরিচালক মুক্তিযোদ্ধা শামমুদ্দিন বলেন, তারা আমার সন্তান। অকারণে মারপিট করা হয়েছে। তারা গরিব বলে এখানে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের লাল-পালন করে মানুষ করছি। তাদের উপর হামলার ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি। আহতদের মধ্যে আসমাউল ইসলাম অষ্টম শ্রেণি ও রাশিদুল ইসলাম নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী।
বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী মাহামুদ বলেন, এ বিষয়ে মামলা হয়েছে। ইতোমধ্যে একজনকে আটক করা হয়েছে। অন্যান্য অভিযুক্তরা পলাতক রয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ