বাঘায় যৌন হয়রানির প্রতিবাদকারী স্বামীকে হারিয়ে নির্বাক স্ত্রী

আপডেট: জানুয়ারি ১৮, ২০২০, ১২:৪১ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


বাঘায় যৌন হয়রানির প্রতিবাদকারী নিহত নাজমুলে শোকার্ত পরিবার-সোনার দেশ

রাজশাহীর বাঘায় যৌন হয়রানির প্রতিবাদকারী স্বামী নাজমুল হোসেনকে হারিয়ে ৭ মাসের কন্যা সন্তানকে নিয়ে নির্বাক হয়ে পড়েছে স্ত্রী মুক্তা খাতুন। নিহতের বাড়িতে চলছে শোকের মাতম।
গতকাল শুক্রবার সকালে উপজেলার গড়গড়ি ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামে নিহত নাজমুল হোসেনের বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, স্ত্রী মুক্তা খাতুন, বাবা আজিজুর রহমান, মা নাজমা বেগমসহ নিকট আত্মীয়দের বিলাপ। নিহত নাজমুলের রেখে যাওয়া ৭ মাসের একমাত্র কন্যা সন্তান নুরিয়া জান্নাতকে কোলে নিয়ে কাঁদছেন স্ত্রী। অকালে স্বামী হারানোর বিয়োগ ব্যথা কোন শান্তনাতেই থামছেনা। অবুঝ শিশুটির বোঝার বয়স হয়নি, তার বাবা বেঁেচ নেই। সন্তান হারানোর শোকে মুর্চ্ছা যাচ্ছিলেন বাবা, মা আর দুই বোন। চলছে স্বজন হারানোর আহাজারি। শুক্রবার সকালে মা নাজমা বেগমকে নিহত ছেলের কবরের পাশে বসে বিলোপ করতে দেখা গেছে। আর বারবার বলছে যারা আমার ছেলে হত্যা করেছে তাদের বিচার চাই।
তবে এ ঘটনার পর থেকে সুলতানপুর ও আশেপাশের এলাকার সচেতন বিভিন্নর শ্রেণি পেশার ছোট বড় সব বয়সের নারী পুরুষের হাতে হাতে ফেস্টুনে লেখা রয়েছে, নাজমুলকে মারলো যারা, ফাঁসির দঁড়িতে ঝুলবে তারা, আমাদের আকুতি বিলোপ হোক সন্ত্রাসী, নুরিয়া জান্নাতের বাবাকে ফিরিয়ে দাও, আমার ভাইয়ের রক্ত ঝরে খুনিরা কেন বাইরে ঘুরে, সন্ত্রাস মুক্ত এলাকা চাই, উই ওয়ান্ট জাস্টিস, মৃত্যু হয়েছে নির্মম, বিচার হবে নির্মম, কোন কিছু বুঝিনা ফাঁসি ছাড়া মানবোনা, এলাকাবাসী বেঁধেছে জোট, খুনিদের ফাঁসি হোক। হাজারো মানুষ জোট বেঁেধ নাজমুলকে হত্যাকারিদের ফাঁসির দাবিতে রাস্তায় নামেন, হাতে হাতে ফেস্টুন ও ব্যানার নিয়ে। শুধু হত্যাকারিদের বিচারের দাবিই ছিলনা, স্কুল ছাত্রী উত্ত্যক্তকারীর সঙ্গে জড়িতদের বিচারের দাবি তাদের। এ নিয়ে চলছে বিক্ষোভ, মানববন্ধন, সমাবেশ।
এদিকে স্কুল ছাত্রীকে উত্ত্যক্তের প্রতিবাদে খুনের ঘটনা আমলে নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপুমনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ফোন দিয়ে ঘটনার খোঁজ নিয়ে আসামিদের গ্রেফতাদের নির্দেশ দিয়েছেন। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে নিহত নাজমুলের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সঙ্গে কথা বলে ন্যায় বিচারের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।
নিহত নাজমুলের চাচা আবু তুয়াব জানান, নাজমুলের পরিবারের এক মাত্র আয়ের ব্যক্তি ছিল সে। তার ৭ মাসের নুরিয়া জান্নাত নামের একটি মেয়ে রয়েছে। এছাড়া তার দুই বোনের অন্যত্র বিয়ে হয়েছে। তবে নাজমুলের নিহতের ঘটনা জানার পর থেকে স্ত্রী মুক্তা খাতুন কোন কথা বলতে পারছেনা। সে নির্বাক হয়ে পড়েছে। কারো সাথে কোন কথা বলছে না। কোন সময়ে কাঁদছে আর নির্বাক হয়ে তাকিয়ে আছে।
এ বিষয়ে বাঘা থানার ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার রাতেই নিহতের বাবা অজিজুর রহমান বাদি হয়ে আরজেদ আলীর ছেলে সুমনকে প্রধান আসামি করে ২৩ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেছেন। এ মামলায় ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্যদের গ্রেফতার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
উল্লেখ্য, উপজেলার সুলতানপুর গ্রাামের শাহাজান আলীর মেয়ে ও খানপুর জেপি উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী তাজনিন তাবাসুম বৈশাখীকে একই এলাকার আরজেদ আলী ভোলা প্রামাণিকের ছেলে সুমন আলী প্রাায় উত্ত্যক্ত করত। ঘটনাটি সুমন আলীর পরিবারকে জানায় ছাত্রীর পরিবার। ফলে ক্ষিপ্ত হয়ে সুমন আলী মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ১০-১৫ জনের একটি দল নিয়ে ছাত্রীর বাবা শাহাজান আলী মাস্টারকে বাড়ি ঘেরাও করে মারধর শুরু করে। পরে ছাত্রীর মামা নাজমুল হোসেন এগিয়ে এলে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ