বাঘায় লোডশেডিংয়ে বিপর্যস্ত জনজীবন

আপডেট: আগস্ট ১০, ২০১৭, ১:২৭ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘায় বৈদ্যুতিক লোডশেডিংয়ে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন। কোন কোন দিন ২৪ ঘণ্টায় ২০ থেকে ২৫ বারের অধিক সময় বৈদ্যুতিক লোডশেডিং হচ্ছে। ফলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে উপজেলাবাসীকে।
স্থানীয়রা জনান, তীব্র গরম। তারপরে বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের ফলে মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। পল্লী বিদ্যুতের ঘন ঘন লোডশেডিংয়ে মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। গরমে অসুস্থ হয়ে পড়ছে শিশু ও বৃদ্ধরা। উপজেলায় ২০ থেকে ২৫ দফায় ৬ থেকে ৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ না থাকার অভিযোগ রয়েছে অহরহ। চলমান গরমে বিদ্যুৎ বিঘ্নতায় অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পল্লী বিদ্যুৎ গ্রাহকরা।
উপজেলার বৈদ্যুতিক লোডশেডিংয়ের শিকার নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবি জানিয়ে স্থানীয়রা বলেন, গরমের শুরু থেকেই বেড়ে গেছে লোডশেডিং। হাজার হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহককে পোহাতে হচ্ছে চরম দুর্ভোগ।
উপজেলার আড়ানী এলাকার শিক্ষক কামরুল হাসান জুয়েল বলেন, বৈদ্যুতিক লোডশেডিংয়ের ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীরা।
উপজেলার বাজু বাঘা এলাকার পল্লি চিকিৎসক আবদুল লতিফ মিঞা বলেন, ভ্যাপসা গরমে মানুষের জীবন যখন ওষ্ঠাগত ঠিক সে সময়ে বিদ্যুতের সীমাহীন লোডশেডিংয়ে বেহাল অবস্থায় ফেলেছে। বিদ্যুতের ভেল্কিবাজি ও ঘন ঘন লোডশেডিংয়ের পাশাপাশি বাসা বাড়িসহ দোকান পাটের টিভি, ফ্রিজ, বৈদ্যুতিক পাখা এবং বাল্বগুলো প্রতিনিয়ত নষ্ট হচ্ছে।
উপজেলার লাগামহীন লোডশেডিংয়ের বিষয়ে বাঘা পল্লী বিদ্যুতের এজিএম মাজহারুল ইসলাম বলেন, তীব্র গরমের কারণেই লোডশেডিং সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। আমরাও চেষ্টা করে যচ্ছি সকল লাইন চালু রাখতে। কিন্তু অতিরিক্ত লোডশেডিংয়ের কারণে পেরে উঠছি না। আবার অনেক সময় লাইনের ত্রুটির করণে ঘন ঘন লোডশেডিং হচ্ছে। তবে দ্রুত সমাধানের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ