বাঘায় শিক্ষার্থীকে উক্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় চাচাকে কুপিয়ে জখম

আপডেট: নভেম্বর ১৮, ২০১৬, ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি



রাজশাহীর বাঘায় সপ্তম শ্রেণি পড়–য়া এক শিক্ষার্থীকে উক্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় ও আম বাগান নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে ওই শিক্ষার্থীর চাচা মসলেম উদ্দিন (৪৮) নামে এক যুবককে কুপিয়ে জখম করেছে প্রতিপক্ষরা। এসময় তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে উপজেলার দাড়পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার সপ্তম শ্রেণিতে পড়–য়া এক শিক্ষার্থীকে উক্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করায় শিক্ষার্থীর চাচা মসলেম উদ্দিনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। এছাড়া উপজেলার বাউসা দাড়পাড়া গ্রামের মসলেম উদ্দিনের ছোট ভাই নজরুল ইসলামের একটি আম বাগান ৬০ হাজার টাকায় চার বছরের জন্য বন্দক নিয়েছেন একই গ্রামের আলতাফ হোসেন। বাগান মালিক নজরুল ইসলাম দুই বছর পর ৩০ হাজার টাকা দিয়ে বন্দককৃত ব্যক্তি আলতাফ হোসেনের কাছে থেকে বাগান ফেরত চায়। কিন্তু বন্দককৃত ব্যক্তি বাগান ফেরত দিতে না চাওয়া বেশ কিছুদিন থেকেও তাদের মধ্যে দ্বন্দ্ব চলছিল বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।
এই ঘটনায় নজরুল ইসলামের বড় ভাই মসলেম উদ্দিন উক্ত্যক্তকারী ও বাগান বন্দককৃত ব্যক্তির বাড়ির পাশ দিয়ে বাউসা বাজারের যাচ্ছিলেন। এসময় আলতাফ হোসেন ও তার দুই ছেলে মিলন হোসেন এবং আতাউর রহমান অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে বাগান মালিক নজরুল ইসলাম বলেন, আমার পরিবারের সপ্তম শ্রেণিতে পড়–য়া এক শিক্ষার্থীকে আলতাফ হোসেনের ছেলে মিলন হোসেন দীর্ঘদিন থেকে উত্ত্যক্ত করতো। এই ঘটনার প্রতিবাদ করায় তারা আমার ভাই মসলেম উদ্দিনকে মারপিট করেছে। পাশাপাশি বাগান বন্দকের ঘটনাও ছিল।
এ বিষয়ে বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ আলী মাহমুদ বলেন, বাগান ও এক মেয়েকে উত্ত্যক্তের ঘটনায় একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।