বাঘায় শিক্ষার্থীর বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা

আপডেট: মার্চ ১০, ২০১৭, ১২:১০ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি


রাজশাহীর বাঘায় শিক্ষকের অপমান সইতে না পেরে দশম শ্রেণির রায়হান আলী নামের এক শিক্ষার্থী বিষ পানে আত্মহত্যার চেষ্টা। রায়হান আলী উপজেলার হরিনা স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। তাকে আহত অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। শিক্ষার্থী উপজেলার হরিনা গ্রামের মনিরুল ইসলামের ছেলে।
জানা যায়, শিক্ষার্থী রায়হান আলী বৃহস্পতিবার স্কুলে আসে। সে তৃতীয় ক্লাস শেষে বাইরে যায়। এই সময় স্কুলের সহকারি কৃষি শিক্ষক রুমানা খাতুন এই শিক্ষার্থীর কাছে জানতে চায়। ক্লাস চলছে বাইরে কেন? এই সময় শিক্ষার্থী সঠিক জবাব দিতে না পারায় অপমান করে। এই অপমান সহ্য করতে না পেরে স্কুলের পাশে এক আম বাগাতে বিষ স্প্রে করছিল। এই বিষ সে পান করে। পরে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্রে ভর্তি করা হয়েছে।
হরিনা স্কুলের প্রধান শিক্ষক আবদুল মান্নান বলেন, শিক্ষার্থীকে অপমান করা হয়নি। সে ক্লাসের বাইরে থেকে দেরিতে আসায় জানতে চাওয়া হয়েছে। এর বেশি কিছু না। তার বন্ধুর সাথে ভাজলামী করতে করতে এমন ঘটনা করেছে।
স্কুলের সহকারি কৃষি শিক্ষক রুমান খাতুন বলেন, এই শিক্ষার্থী ক্লাসে এসে প্রায় সময় অমনোযোগী থাকত। প্রশ্ন করলে কোন উত্তর দেয় না। ক্লাস করতে করতে প্রায় সময় বাইরে যেত। এই দিনও একই ঘটনা করে। ফলে তার কাছে বাইরে যাওয়া বিষয়ে জানতে চেয়েছিলাম এর বেশি কিছু না। পরে এই ঘটনা ঘটিছে শুনেছি।
শিক্ষার্থীর বাবা মনিরুল ইসলাম বলেন, আমার ছেলে সাদা মনের। শিক্ষক কি কথা বলল, যে আমার ছেলে এমন কাজ করল।
বাউসা ইউনিয়নের হরিনা ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বর স্বপন আলী ঘটনাটি শুনেছেন বলে জানান।
স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি শরিফুল ইসলাম বলেন, পারিবারিক সমস্যার কারনে বিষ খেয়েছে। স্কুলের সাথে বিষ খাওয়ার বিষয়ে কোন সম্পর্ক নেই।
উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দায়িত্বপ্রাপ্ত ডাক্তার আসাদুজ্জামান বলেন, রায়হানকে এখানে আনার পর তার মুখে পাইপ দিয়ে বিষ বের করা হয়েছে। ৪৮ ঘণ্টা না যাওয়া পর্যন্ত কিছুই বলা যাবে না।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হামিদুল ইসলাম বলেন, এই বিষয়ে কেউ কোন অভিযোগ করে নি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নিব।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ