বাঘায় সরকারের উন্নয়নে বদলে গেছে গ্রামীণ জনপদের চিত্র

আপডেট: অক্টোবর ১২, ২০২৩, ৩:১১ অপরাহ্ণ


আমানুল হক আমান, বাঘা:


রাজশাহীর বাঘায় বদলে গেছে গ্রামীণ জনপদের চিত্র। আওয়ামী লীগ সরকার ১৫ বছরে যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিদ্যুৎ, স্কুল-কলেজ, কালভাট, ব্রিজ, সেনিটেশন, বিশুদ্ধ পানি, হাট-বাজার, ক্লাব, যাত্রী ছাউনী, মসজিদ, মন্দ্রির, ল্যাম্প পোস্ট, পদ্মা বাধ, সৌর বিদ্যুৎ এর উন্নয়ন করা হয়েছে।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সহযোগীতায় রাজশাহী-৬ (বাঘা-চারঘাট) আসনের সংসদ সদস্য পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের প্রচেষ্টায় এই উন্নয়ন করা হয়েছে।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এবং বিদেশি দাতা সংস্থার মাধ্যমে ৮০০ কোটি টাকার উন্নয়ন হয়েছে। ফলে বদলে গেছে গ্রামীণ জনপদ, মানুষের জীবনযাত্রারমান ও কর্মসংস্থান।

জানা যায়, ১৫ বছরে আড়ানী পৌরসভায় স্থানীয় সরকারের অধীনে এডিপি খাতে ১৫০ কোটি টাকা, গুরুত্বপূর্ণ প্রজেক্ট খাতে ৮০ কোটি, শহর অবকাঠামো উন্নয়ন খাতে ৯০ কোটি, রাজস্ব খাতে ১১০ কোটি, বিদেশি দাতা সংস্থা উন্নয়ন খাতে ১০০ কোটি, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে ফেস্টুর আওতায় ৪০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে।

অপর দিকে বাঘা পৌরসভায় স্থানীয় সরকারের অধীনে এডিপি খাতে ১৮০ কোটি টাকা, গুরুত্বপূর্ণ প্রজেক্ট আইইউ আইডিপি খাতে ৯৫ কোটি, শহর অবকাঠামো ইউটি আইডিপি খাতে ১০০ কোটি, রাজস্ব খাতে ৩ কোটি, বিদেশি দাতা সংস্থা খাতে ২০০ কোটি, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অধীনে আইইউআইডিপি ফেস্টুর আওতায় ১১০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ করা হয়েছে।

বাঘা পৌরসভায় ৬০ কিলোমিটার পাকা রাস্তা, ড্রেন, কালভাট, স্যানিটেশন, লাইট, মার্কেটসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করা হয়েছে।
এদিকে মানুষের জীবনমান, আর্থ সামাজিক, সমাজসেবা, খাদ্য অধিদপ্তর ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মাধ্যমে ৬০০ কোটি টাকার উন্নয়ন করা হয়েছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অধিদপ্তরের মাধ্যমে প্রায় ৪০০ কোটি টাকার উন্নয়ন বাস্তবায়ন করা হয়েছে। এর মধ্যে টিআর, কাবিখা, ইজিপিপি, ভিজিএফ, মানবিক সহায়তা, সেতু-কালভার্ট, সৌর বিদ্যুতায়ন, অগ্নিকান্ডে নিঃস্ব, বন্যায় ত্রাণ সহায়তা, গুচ্ছ গ্রাম, প্রধানমন্ত্রীর ‘জমি আছে ঘর নেই’ প্রকল্পের অধীনে ৪০৮টি বাড়ি ও আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে ১১০টি পরিবারকে গৃহনির্মাণ ও ১২ জন অসহায় মুক্তিযোদ্ধার বাড়ি নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর ৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উন্নয়ন করা হয়েছে। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মচারীদের কোয়ার্টার ও ২১টি কমিউনিটি ক্লিনিক নির্মান করা হয়েছে। এনসিডি কর্নার, পাবলিক টয়লেট, আইভিশন সেন্টার, অপারেশন থিয়েটার, ডিজিটাল এক্সে মেশিন, আলট্রাসাউন্ড মেশিন, আধুনিক মেশিন, ডেন্টাল ইউনিট, মা ও শিশু হাসপাতাল স্থাপন করা হয়েছে।

কৃষি খাতে ৩০টি পাওয়ার টিলার, ১০০ স্প্রে মেশিন সরবরাহ করা হয়েছে। ৮ বছর থেকে উপজেলার উৎপাদিত আম যুক্তরাজ্যে, নেদারল্যান্ড, পর্তুগাল হংকং ও ইংল্যান্ডসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহারিয়ার আলম এমপি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার ১৫ বছরে যে উন্নয়ন করেছেন। তা তালিকা করে শেষ করা যাবে না। এক কথায় বাংলাদেশ স্মাট বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখছেন। তা আগামী সংসদ নির্বাচনের পর বাস্তবায়ন করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ