বাঘায় হত্যা মামলায় বাদীর ঘর-বাড়ি ভাঙচুর ও লুটপাট

আপডেট: নভেম্বর ১০, ২০১৬, ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

বাঘা প্রতিনিধি



রাজশাহীর বাঘার পদ্মার চরে হত্যা মামলা তুলে না নেওয়ায় মামলার বাদীর বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও নগদ টাকাসহ গরু-ছাগল লুটপাট করে নিয়ে গেছে আসামির লোকজন। এ ব্যাপারে সাতজনকে অভিযুক্ত করে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ৭টার দিকে পদ্মার চরের পলাশী ফতেপুর চরে এ ঘটনা ঘটে।
অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, হত্যা মামলা তুলে না নেওয়ায় বাঘা উপজেলার পদ্মার চরের চকরাজাপুর ইউনিয়নের পলাশী ফতেপুর গ্রামের নুরুল ইসলামের বাড়িতে বুধবার সকাল ৭টার দিকে একই গ্রামের শাহাজান ডাক্তার, ফজল ব্যাপারী, বাবলু ব্যাপারী, লাভলু হোসেন, রবিউল ইসলাম, পারভিন বেগম, জব্বার আলীসহ ৯ থেকে ১০ জন একত্রিত হয়ে লাঠি, লোহার রড়, ধারালো হাসুয়া নিয়ে হামলা চালানো হয়। এই হামলায় বাড়ির লোকজনকে মারপিট করে বাড়ি-ঘর ভাচুর ও নগদ ৫০ হাজার টাকাসহ দুটি অস্ট্রেলিয়ান গাভী, ছয়টি ছাগল জোরপূর্বক লুটপাট করে নিয়ে যায়।
২০১৪ সালের ২০ সেপ্টেম্বর প্রেমে বাধা দেওয়ায় নুরুল ইসলামের স্ত্রী সোনা বানুকে হত্যা করে হামলাকারীরা। এ ব্যাপারে পরের দিন বাঘা থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়। এই মামলার আসামিরা বুধবার সকালে হামলা চালিয়ে এ লুটপাটের ঘটনা ঘটায়।
এ ব্যাপারে বাড়ির মালিক নুরল ইসলামের ছেলে আনিসুর রহমান পচু বাদী হয়ে বাঘা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।
এ বিষয়ে চকরাজাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আজিযুল আযম বলেন, উভয়ের মধ্যে একটি ভুল বোঝাবুঝির কারণে থানায় মামলা হয়েছিল। কিছুদিন পর স্থানীয়ভাবে সমঝোতা হয়। কিন্তু বাদী নুরুল ইসলাম মামলাটি তুলে না নেওয়ায় এই ঘটনাটি ঘটেছে।
বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলী মাহমুদ বলেন, বাড়ি-ঘর ভাঙচুর ও লুটপাটের বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে পুলিশ অফিসার পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।