বাঘা পৌরসভার পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় শতাধিক বাড়ির উঠানে পানি

আপডেট: জুলাই ১২, ২০২০, ১০:২৭ অপরাহ্ণ

আমানুল হক আমান, বাঘা:


রাজশাহীর বাঘা পৌর এলাকায় পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা না থাকায় ভারিবর্ষণের শতাধিক বাড়ির উঠানে পানি জমে গেছে। ফলে গরু-ছাগল ও ছোট শিশুদের নিয়ে খুব কষ্টে বসবাস করছে এসব বাড়ির বাসিন্দারা। পৌর কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হলেও পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি।
জানা যায়, কয়েক দিন থেকে ভারিবর্ষণ শুরু হয়েছে। এই বর্ষণে পৌরসভার ৬ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডের অধিকাংশ বাড়িতে পানি জমে আছে। এমনকি ঘরের বারান্দা পর্যন্ত পানি অবস্থান করছে। এই পানির মধ্যে গরু, ছাগল পালনকারীরা পড়েছে সমস্যায়। পৌরসভা কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হলেও ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

রোববার (১২ জুলাই) বাঘা পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাজুবাঘা নতুনপাড়া মহল্লায় সরেজমিনে দেখা যায়, আরজিনা বেগম, শকিনা বেগম, শাপলা বেগম, আমেলা বেগম, জিল্লুর রহমান, আমিনুল ইসলাম উকিলসহ বাড়ির বাড়ির উঠানে পানি জমে আছে। এছাড়া তারা বাড়ির বাইরে যেতে পারছে না।

বাঘা পৌরসভার ৬ নম্বর ওয়ার্ডের বাজুবাঘা নতুনপাড়া মহল্লার আজিজুল ইসলাম বলেন, এক সপ্তাহ যাবত ৯টি গরু নিয়ে খুব বেকায়দায় আছি। আমার বাড়ির উঠানে ও গরুর গোয়াল ঘরে পানি উঠেছে। অবশেষে ভাগ ভাগ করে পাশের দুই বাড়িতে গরু রাখা হয়েছে। বিষয়টি পৌরসভার কর্তৃপক্ষকে অবগত করা হয়েছে। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।
এদিকে আরজিনা বেগম, শকিনা বেগম, শাপলা বেগম, আমেলা বেগমের বাড়িতে পানি উঠায় রোববার দুপুরে অন্যের বাড়ি থেকে রান্না করে আনা হয়েছে। গরু, ছাগল ও ছোট বাচ্চাকে নিয়ে খুব বেকায়দায় রয়েছি। আমাদের এই মহল্লার শতাধিক বাড়িতে পানি টলমল করছে। এই পানির মধ্যে চলাফেরা করতে হচ্ছে।

বাঘা পৌর মেয়র আবদুর রাজ্জাক বলেন, এবার বর্ষায় বৃষ্টির পরিমাণটা বেশি মনে হচ্ছে। তারপরও বেশি সমস্যা চিহ্নিত করে দ্রুত পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এছাড়া প্রকল্প তৈরি করা রয়েছে, বর্ষা শুরু হওয়ার কারণে কাজটা শুরু করা সম্ভব হয়নি। তারপরও দুই/এক দিনের মধ্যে পানি নিষ্কাশনের কাজ শুরু করা হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ