বাজারে কমেছে সবজির দাম

আপডেট: ডিসেম্বর ৩০, ২০১৬, ১১:৩৪ অপরাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


নগরীর বাজারে এ সপ্তাহে কমেছে শীতকালীন সবজির দাম। বাজারে শীতকালীন পণ্যের আমদানি ভালো থাকায় দাম কমেছে। শুক্রবার নগরীর সাহেববাজার মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারে গিয়ে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এ তথ্য।
নগরীর মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারে সবজি ব্যবসায়ী শাহিন জানান, ‘শীতকালে বেশি পরিমাণে সবজি উৎপাদন হয়। উৎপাদন ভালো হওয়ায় বাজারে সবজির সরবরাহও বেশি থাকে। সেইজন্য এ সময় বাজারে সবধরনের সবজির দাম কমতে থাকে।’
বাজারে সবজির দাম আরো কমবে তবে দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই বলেও জানান এ সবজি ব্যবসায়ী।
নগরীর মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারের সবজি ব্যাবসায়ীরা জানান, বর্তমানে বাজারে প্রতিকেজি আলু বিক্রি হচ্ছে রকমভেদে ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা দরে। যা গত সপ্তাহে বিক্রি হয় প্রতিকেজি ২০ টাকা থেকে ২৫ টাকা দরে। বেগুন প্রতিকেজি বিক্রি হচ্ছে প্রতিকেজি ২০ টাকা দরে। যা গত সপ্তাহে বিক্রি হয় প্রতিকেজি ২৫ টাকা থেকে ৩০ টাকা দরে। শশা গত সপ্তাহে প্রতিকেজি ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি হলেও গতকাল তা বিক্রি হয় প্রতিকেজি ২৫ টাকা থেকে ৩০ টাকা দরে। টমেটো গত সপ্তাহে প্রতিকেজি ৩০ টাকা থেকে ৫০ টাকা দরে বিক্রি হলেও গতকাল তা বিক্রি হয় প্রতিকেজি আর মটরশুটি ১৫০ টাকা থেকে ২০০ টাকা দরে গত সপ্তাহে বিক্রি হলেও গতকাল তা বিক্রি হয় ১০০ টাকা থেকে ১২০ টাকা দরে।
এদিকে কাঁচামরিচ, গাজর, পিঁয়াজ, আঁদা, রসুন লেবু, ধনে পাতা, ছিমসহ বেশ কিছু সবজির দাম অপরিবর্তিত দরে বিক্রি হয়। গতকাল কাঁচামরিচ প্রতিকেজি ৪০ টাকা, গাজর প্রতিকেজি ২৫ টাকা থেকে ৩০ টাকা, আঁদা প্রতিকেজি ৬০ টাকা, লেবু প্রতি হালি ৪ টাকা থেকে ৫ টাকা, ধনেপাতা প্রতিকেজি ২০ টাকা থেকে ৩০ টাকা, ছিম প্রতিকেজি ৩০ টাকা থেকে ৪০ টাকা, ফুলকপি প্রতিকেজি ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা, বাঁধাকপি প্রতি পিস ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা, ফুলকা প্রতিকেজি ৫ টাকা, মিষ্টি কুমড়া প্রতিকেজি ১৫ টাকা থেকে ২০ টাকা, কাঁচা কলা প্রতি হালি ১০ টাকা থেকে ১২ টাকা, মুলা প্রতিকেজি ১০ টাকা থেকে ১৫ টাকা, ডুমুর প্রতিকেজি ২০ টাকা আর করলা প্রতিকেজি ৪০ টাকা দরে বিক্রি হয়। তবে গত সপ্তাহের তুলনায় বেড়েছে রসুনের দাম। রসুন প্রতিকেজি ১৫০ টাকা থেকে ১৬০ টাকা দরে গত সপ্তাহে বিক্রি হলেও গতকাল তা বিক্রি হয় প্রতিকেজি ১৮০ টাকা থেকে ২০০ টাকা দরে।
নগরীর মাস্টারপাড়া কাঁচাবাজারের কেনাকাটা করতে আসা সুনীল নামের একজন চাকুরীজীবী বলেন, ‘বাজারে বর্তমানে সবজির দাম অনেক কম। আর চাল-ডাল সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দামও স্বাভাবিক রয়েছে। তবে মাংশের দামটা কিছুটা বেশি সেটা একটু কমা দরকার।’
বছরের প্রতিটি সময় বাজার এমন থাকলে মানুষ স্বস্তিতে থাকবে তাই এমনটাই থাকা উচিৎ বলেও মন্তব্য করেন এ চাকুরীজীবী।
নগরীর বাজারগুলোতে খাশির মাংশ প্রতিকেজি ৬০০ টাকা থেকে ৬৫০ টাকা আর গরুর মাংশ প্রতিকেজি ৪০০ টাকা থেকে ৪২০ টাকা দরে বিক্রি হতে দেখা গেছে। আর মুরগির মধ্যে ব্রয়লার প্রতিকেজি ১৫০ টাকা, সোনালি প্রতিকেজি ২২০ টাকা, দেশি প্রতিকেজি ৩০০ টাকা, কক প্রতিকেজি ২১০ টাকা দরে এবং পাতিহাস প্রতিকেজি ২৩০ টাকা দরে বিক্রি হয়। বাজারে মুরগির সাদা ডিম প্রতিহালি ২৬ টাকা আর লাল ডিম ২৮ টাকা দরে বিক্রি হয়।
মাছের ব্যাবসায়ীরা বলেন, ইলিশ মাছ ৬০০ টাকা, চিংড়ি মাছ ৫০০ টাকা, বাসপাতা মাছ ৬০০ টাকা, সিলভার কাপ মাছ প্রতিকেজি ১০০ টাকা, রুই মাছ ২০০ টাকা থেকে ২৫০ টাকা, পাঙ্গাস মাছ ১০০ টাকা আর কাতল মাছ ২৫০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা দরে প্রতিকেজি বিক্রি হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ