বাজারে ঝাঁজ ছড়াচ্ছে মরিচ

আপডেট: জুলাই ২৫, ২০২০, ১২:০৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বৃষ্টিতে গাছ নষ্ট হওয়ার অজুহাতে বেড়েছে সবজির দাম। অরিবর্তিত রয়েছে মাছ ও মাংসের দাম। ব্যবসায়ীরা বলছেন, আদমানি কম। চাহিদা বেশি থাকায় দাম বেড়েছে।
অন্যদিকে, চলতি মাসের শুরু থেকে বাজারে ঝাঁজ ছড়াচ্ছে কাঁচা মরিচ। সপ্তা ভেদে কাঁচা মরিচে কেজিতে ১৬০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ২০০ টাকা দরে। এছাড়া অন্য সবজিতে প্রতি কেজিতে বেড়েছে ৮ থেকে ১০ টাকা।
রাজশাহীর উপশহর নিউ মার্কেট এলাকায় খুচরা প্রতিকেজি আলু ৩০ থেকে ৩২ টাকা, পটল ২০ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা, চিচিঙ্গা ৩০ থেকে বেড়ে ৪০ টাকা, পেঁপে ৩০ টাকা, কলা প্রতিহালি ২০ টাকা, ঢেঢ়স ২০ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৩০ টাকা দরে। এছাড়া বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা, টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১২০ টাকা, পটল ৩০ টাকা, লাউ ৩৫ থেকে ৪০ টাকা, কচু ৫০ টাকা, শশা ৫০ টাকা ঝিঙা ৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া পেঁয়াজ প্রতিকেজি ৪০ থেকে ৪৫ টাকা, রসুন ১২০ টাকা, আদা ১৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
সবজি বিক্রেতা রবিউল ইসলাম জানায়, ইদের দু’দিন আগে ও পরে সবজির দাম কমবে। ইদের সময়ে মানুষ তেমন সবজি কিনবে না। এছাড়া বৃষ্টির কারণে সবজির জোগান কম। চাহিদা বেশি থাকায় দাম বেড়েছে। এভাবে বৃষ্টি ও বন্যা বাড়তে থাকলে কৃষকের জমির সবজি নষ্ট হয়ে যাবে। তখন দাম আরও বাড়বে।
এদিকে, কয়েকটি চালের দাম বেড়েছে কেজিতে দুই থেকে তিন টাকা। বৃষ্টির কারণে ধান থেকে চাল প্রস্তুত করা যাচ্ছে না। তাই দাম বেড়েছে বলে জানায় ব্যবসায়ীরা।
বাজারে প্রতিকেজি মিনিকেট ৬০ টাকা, আঠাশ ৫০ টাকা, বাঁশমতি ৭০ টাকা, পোলাও ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া খোলা সোয়াবিন তেল ৮০ টাকা, মশুরের ডাল ১২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।
এছাড়া বাজারে মাছের দাম অরিবর্তিত রয়েছে। নগরীর সাহেববাজার মাছ আড়তের মাছ ব্যবসায়ী মমিন জানান, বাজারে পুকুরে চাষ ও নদীর মাছ বেশি উঠছে। তাই দামও আগের মতই রয়েছে।
তিনি জানান, সাহেববাজারে প্রতিকেজি রুই ২২০ থেকে ২৭০ টাকা, কাতল মাছ ২২০ থেকে ২৫০ টাকা, গ্লাসকাপ ২০০ থেকে ১৬০ টাকা, তেলাপিয়া মাছ ১২০ থেকে ১৬০ টাকায় বিক্রি হয়।
এদিকে নদীর কাটা পাতাসি ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা, জিওল ৪০০ থেকে ৬০০ টাকা, আইড় মাছ ৮০০ থেকে ৬৫০ টাকা, বাঁশপাতা ৮০০ টাকা, পাবদা ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায় বিক্রি হয়।
গরুর গোশত বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রতিকেজি গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৫৪০ টাকা এবং খাশির গোশত সাড়ে ৭৫০ থেকে ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়। এছাড়া প্রতিহালি মুরগির ডিম ৩০ থেকে ৩২ টাকায় বিক্রি হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ