বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃত্যু চাঁপাইনবাবগঞ্জে সাত দিনের ‘বিশেষ লকডাউন’ ঘোষণা

আপডেট: মে ২৪, ২০২১, ৯:৪০ অপরাহ্ণ

সাজেদুল হক সাজু, চাঁপাইনবাবগঞ্জ:


চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনার ভয়াল থাবায় মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে সোমবার (২৪ মে) করোনায় আক্রান্ত হয়ে ১০ জন মৃত্যুবরণ করেছে। এদের ৫ জনই চাঁপাইনবাবগঞ্জের। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের হার ক্রমাগত বেড়ে যাওয়ায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা জুড়ে সোমবার (২৪ মে) দিবাগত রাত ১২টা থেকে ৭ দিনের বিশেষ লকডাউন ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। সাম্প্রতিক সময়ে টেস্টের তুলনায় শনাক্তের হার ৫০ শতাংশেরও বেশি হওয়ায় এই বিশেষ লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সোমবার দুপুরে এক জরুরি প্রেস ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নির্দেশনাক্রমে জনগণকে সুরক্ষিত ও নিরাপদ রাখতে করোনা প্রতিরোধ কমিটির সর্বসম্মত সিদ্ধান্তে শেষ এই লকডাউন ঘোষণা করেন, জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ। এতে আগামী ৩০ মে পর্যন্ত জেলা থেকে কেউ বাইরে যেতে এবং বাইরে থেকে কেউ জেলায় প্রবেশ করতে পারবে না। তবে জরুরি পরিষেবা কার্যক্রম চালু থাকবে বলে জানানো হয়েছে।
জানা গেছে, চাঁপাইনবাবগঞ্জের ৫ টি উপজেলায় ৫০ লক্ষ মানুষের বসবাস। জেলার ৪ উপজেলার চোরা কারবারিরা মাদক, ফেন্সিডিল, ইয়াবা, অস্ত্র, বিড়ি, অবৈধ মোবাইল ভারত থেকে নিয়ে আসে। এসব অবৈধ পণ্য আইন-শৃঙ্খলার বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও তারা বিভিন্ন রুট দিয়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে যায়। ফলে গ্রামগুলোতে খুব দ্রুত করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি রয়েছে। অথচ প্রান্তিক এলাকাগুলোতে এ বিষয়ে সচেতনতা খুবই কম।
উত্তরের সীমান্ত ঘেঁষা চাঁপাইনবাবগঞ্জে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট নিয়ে উদ্বেগ বাড়ছে। এরই মধ্যে ঢাকায় নমুনা পাঠানো হয়েছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ নাগরিক অধিকার আন্দোলনের সদস্য সচিব মনিরুজ্জামান মনির বলেন, পবিত্র ইদুল ফিতরের দশ দিন আগে হাজার হাজার কর্মজীবি মানুষ চাঁপাইনবাবগঞ্জে পরিবারের সাথে ইদ উদ্যাপন উপলক্ষে নিজ বাড়িতে আসে। এদের মাধ্যমে অনেক মানুষ করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এছাড়াও সীমান্ত ঘেঁষা ইউনিয়নগুলোতে ঠান্ডা-জ¦ররোগির সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলেছে। চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর হাসপাতালে করোনা রোগীর জন্য মাত্র ৩০টি সিট রয়েছে। বর্তমান অবস্থায় যেভাবে করোনার রোগীর সংখ্যা বাড়ছে তাতে রোগীর চিকিৎসা সেবা দেওয়া কঠিন হয়ে যেতে পারে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সিভিল সার্জন ড. জাহিদ নজরুল চৌধুরী জানান, বর্তমানে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিভিন্ন হাসপাতাল ও হোম কোয়ারেন্টাইনে ২৪৬ জন রোগীকে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এছাড়া গত ৫ দিনে ভারত থেকে আগত ৬৫ জনকে প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টাইনে রাখা হয়েছে। নবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ১৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৫৯। করোনায় এ পর্যান্ত ৩২ জন মারা গেছেন।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, জরুরি পরিষেবা ছাড়া ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকবে। তবে বিশেষ ব্যবস্থায় আম বাজারজাত করা যাবে বলে তিনি জানান।
এদিকে, প্রেস ব্রিফিংয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার এএইচএম আবদুর রকিব জানান,স্বাস্থ্য বিভাগ ও জেলা প্রশাসনকে সহায়তায় মাঠে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আগামীকাল ( মঙ্গলবার) থেকে জেলায় প্রবেশের সকল পথ সিলগালা করা হবে। যাতে কেউ জেলায় প্রবেশ করতে এবং জেলা থেকে বাইরে যেতে না পারে। পাশাপাশি সর্বাত্মক কঠোর লকডাউন মেনে চলতে বাধ্য করা জবে জনগণকে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ