বিএনপির দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে নগর আ’লীগের বিশাল বিক্ষোভ মিছিল

আপডেট: ডিসেম্বর ২, ২০২২, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


সরকারের উন্নয়ন কার্যক্রমকে ব্যাহত ও বিএনপি‘র অব্যাহত দেশবিরোধী ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, রাজশাহী মহানগরের উদ্যোগে বিশাল বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিশাল বিক্ষোভ মিছিলটি নগরীর কুমাপাড়াস্থ দলীয় কার্যালয় থেকে শুরু হয়। এরপর সাহেব বাজার জিরোপয়েন্ট হয়ে রাজশাহী কলেজের সামনে দিয়ে ফায়ার সার্ভিস মোড় ঘুরে ঘোষপাড়া হয়ে মালোপাড়া হয়ে জয় বাংলা চত্বর (বাটার মোড়) হয়ে সাহেব বাজার জিরোপায়েন্ট বড় মসজিদের সামনের চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। এরপর সেখানে অনুষ্ঠিত হয় প্রতিবাদ সমাবেশ। বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্বে দেন ও প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথি থেকে বক্তব্য দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আলী কামাল সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন। সমাবেশের সঞ্চালনা করেন রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ডাবলু সরকার। কর্মসূচিতে মহানগর আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের হাজার হাজার নেতাকর্মী অংশগ্রহণ করেন।

সমাবেশে এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, বিজয়ের এই মাসে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগ বিশালমত মিছিল ও সমাবেশের মাধ্যমে আরেকটি ইতিহাস সৃষ্টি করলো। এই মানুষগুলোকে মাদ্রাসা মাঠে ঢোকালে মাদ্রাসা মাঠভরপুর হয়ে যাবে। যেইটার জন্য বিএনপি কয়েকদিন ধরে ঢাক-ঢোল বাজিয়ে রাজশাহীর আটটি জেলা ভাড়া করে লোকজন নিয়ে এসে তারা মাঠে ভর্তি করে দেখাতে চায়। আসুন-দেখুন, মাত্র একদিনের নোটিশে আমরা কী রকম বড় মিছিল ও সমাবেশ করতে পারি। আমরা শুধুমাত্র রাজশাহী মহানগর এই আয়োজন করেছি। রাজশাহী জেলা ও অন্যান্য জেলাকে আলাদাভাবে প্রোগ্রাম করতে বলেছি। আওয়ামী লীগ জনগণের দল। আওয়ামী লীগ মানেই জনগণের সংগঠন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তিল তিল করে তাঁর যৌবনের সমস্ত উত্তাপ দিয়ে তিনি দলটিকে তৈরি করেছিলেন। সেই দল আওয়ামী লীগকে দুর্বল ভাববেন না, শেখ হাসিনাকে দুর্বল ভাববেন না।

খায়রুজ্জামান লিটন আরো বলেন, লন্ডনে বসে ক্যাসেট বাজায় তারেক জিয়া। আর সেই তারেক জিয়ার ক্যাসেট শুনে এরা এখানে আওয়াজ দেয়। আমরা বলতে চাই আপনাদের হাওয়া ভবন, চম্পা ভবন, খোয়াব ভবন ছিল। খোয়াব ভবনের মতো খোয়াব আর দেখেন না। আর খোয়াব দেখে লাভ নাই। আবারো ক্ষমতায় বসবেন, লুটপাট করবেন- আপনাদের সেই স্বপ্ন আর পূরণ হবে না।

খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, আপনারা সমাবেশ করছেন, আমরা জানি কেন করছেন। নির্বাচনও করবেন। এখন বলছেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচন করবেন না, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন করবেন না। আপনাদের জন্য নির্বাচন থেমে থাকবে না। নির্বাচনে আসেন, কিছু আসন পেলেও পেতে পারেন। জনগণ যদি দেয়, তাহলে কিছু আসন পেতে পারেন।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশে ব্যাপক উন্নয়ন দৃশ্যমান। আমরা যা জীবনেও কল্পনা করতে পারিনি, সেই রকম চকম দেখিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। বাংলাদেশে নদীর তল দিয়ে টানেল তৈরি হচ্ছে। ঈশ্বরদীতে পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মিত হচ্ছে, যেখানে ২৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে। সর্বদিক দিয়ে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশকে কাঙ্খিত জায়গায় নিয়ে যাবেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা, যিনি স্বাধীনতা আনতে দেখেছেন, স্বাধীনতার সুতিকাগার দেখেছেন, তাকে গণতন্ত্র শেখাবার চেষ্টা করেন না মির্জা ফখরুল সাহেবেরা। আপনারা হেরে যাবেন, পারবেন না।

বিএনপির উদ্দেশ্যে খায়রুজ্জামান লিটন বলেন, সরকার অনুমতি দিয়েছে সমাবেশ করেন। ভদ্রভাবে করেন, ৮ জেলা থেকে লোক নিয়ে এসে করেন, কোনটাতে আপত্তি নেই। কিন্তু যদি শুনি কোথাও কোন গাড়ি ভেঙেছেন, যানবাহনে আগুন দিয়েছেন বা জনগণের মাঝে অশান্তি তৈরি করেছেন, তাহলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কী করবে, সেটি তাদের ব্যাপার। কিন্তু দলীয়ভাবে আমরা ক্ষমতাশীন দল ছেড়ে দিতে পারি না। জনগণ আমাদের রায় দিয়েছে, জনগণের পক্ষে কাজ করার জন্য, উন্নয়ন দেবার জন্য, তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন করবার জন্য, আমরা সেটি রক্ষা করতে ওয়াদাবদ্ধ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ