বিএনপি নেতা সিরাজুলের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা

আপডেট: জুলাই ১২, ২০১৭, ১:৩৪ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলামের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও শিক্ষককে প্রাণনাশের হুমকির অভিযোগে মামলা দায়ের করা হয়েছে। গত ৯ জুলাই শিক্ষক সোহেল রানা বাদী হয়ে মতিহার থানায় মামলা দায়ের করা হয় (মামলা নং-১৫)।
মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, সোহেল রানা মতিহার থানাদীন শ্যামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক হিসেবে যোগদান করেন ও যথারীতি স্কুলে যাতায়াত করেন এবং ক্লাস পরিচালনা করেন। স্কুলের সভাপতি জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম সোহেল রানার কাছে নতুন এমপিও হওয়ায় আড়াই লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। টাকা দিতে সোহেল রানা অস্বীকার করলে অভিযুক্ত সিরাজুল ইসলাম তাকে ভয়ভীতি দেখায় ও হুমকি প্রদান করেন।
গত ১২ থেকে ১৩ দিন যাবৎ সোহেল রানা স্কুলে আসলেও সভাপতির নির্দেশক্রমে প্রধান শিক্ষক তাকে স্কুলের হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর, স্কুলে ক্লাস নেয়া এবং পরীক্ষায় ডিউটি দেওয়া বন্ধ করে দেয়। গত ৮ জুলাই স্কুলে সোহেল যথারীতি স্কুলে আসলে এবং রুমে থাকা অবস্থায় সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সিরাজুল ইসলাম স্কুলে আসে এবং মৃত্যু ও অঙ্গহানির ভয় দেখিয়ে সোহেলের কাছে চাঁদার দাবি করেন।
চাঁদা না দিলে হাজিরা খাতায় সই করতে দিবেন না। টাকা দিতে অস্বীকার করলে সিরাজুল ইসলাম তাকে কিলঘুশি মারে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে এবং বলে দাবিকৃত টাকা না দিলে কাল থেকে স্কুলে আসতে পারবে না। আর রাস্তায় ধরে হাতপা ভেঙ্গে দেয়া হবে। অভিযোগ পাওয়া গেছে শুধু সোহেল রানা নয় বিএনপির নাম ভাঙ্গিয়ে সিরাজুল বিভিন্ন জনের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করেন এবং হুমকি দিয়ে চাঁদা আদায় করেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকা-ের অনেক অভিযোগ রয়েছে এবং থানায় মামলা চলমান। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ স্কুলের একজন মহিলা শিক্ষক দাবি করেন, তার কাছেও কয়েক দফায় কয়েক লাখ টাকা আদায় করেছে এবং তার এহনো কর্মকা-ের শিকার প্রায় শিক্ষকই।
এ ব্যাপারে সেরাজুল ইসালের সঙ্গে রাতে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। এজন্য তার বক্তব্য পাওয়া যায় নি।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ