বিএনপি রাজনীতির বিদেশ নির্ভরতা দেশের মানুষকে নির্ভর করা যায় না?

আপডেট: মে ৭, ২০২২, ১২:০২ পূর্বাহ্ণ

দলীয়ভাবে ‘নির্বাচনের পর জাতীয় সরকার’ গঠনের যে প্রাথমিক প্রতিশ্রুতি শীর্ষ নেতৃত্বের পক্ষ থেকে সামনে এসেছে, সেই প্রতিশ্রুতিকে কার্যকরভাবে উপস্থাপন করার পক্ষে বিএনপি। বিশেষত, দেশের নির্বাচন ও রাজনীতিতে যে কয়টি প্রভাবশালী রাষ্ট্রের ভূমিকা দেখা যায়- সেসব দেশের কাছে পরিবর্তনের প্রতিশ্রুতি অর্থপূর্ণভাবে পৌঁছাতে চান দলটির নীতিনির্ধারকরা।
দেশের অনলাইন সংবাদ মাধ্যমে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।
সন্দেহ নেই রাজনীতি একটি কৌশলগত খেলা বটে। কৌশল প্রয়োগে সক্ষমতা, সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতা এবং ভবিষ্যতমুখি চিন্তা প্রয়োগের মত প্রজ্ঞা রাজনৈতিক নেতৃত্বের অবশ্যই থাকতে হবে। তা না হলে আঁধার হাতরিয়েই মরতে হবে- কাজের কাজ কিছুই হবে না। গণতন্ত্রের ভাষা হল, জনগণই সকল ক্ষমতার উৎস। উৎসধারাই যদি রাজনীতিতে উপেক্ষিত হয় তা হলে সেটা রাজনৈতিক শক্তি ও নেতৃত্বের ভারসাম্য হারায়। বিএনপি বোধ করি সেই পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। উৎসমুখের ধারাকে উন্মুক্ত না করে বিদেশমুখিনতা বা বিদেশ নির্ভরতা কতটুকু কার্যকর রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত হচ্ছে- সেই বিষয়টি মোটেও বিবেচ্য হচ্ছে বলে মনে হচ্ছে না। এবং যে কাজটি প্রথমত করা বাঞ্ছনীয় ছিল।
উল্লিখিত প্রতিবেদনে বিএনপির প্রভাবশালী দুই নেতার উদ্ধৃতি দিয়ে উল্লেখ করা হয়, বিএনপি কোনো পরিবর্তন করবে কিনা, দলের ওপর যেসব অভিযোগ বিগত একযুগের বেশি সময় ধরে আলোচিত, সেসব অবস্থান থেকে সরে আসবে কিনা- এ বিষয়গুলোতে পরিষ্কার বার্তা ও প্রতিশ্রুতি চান তারা।
এটা শুধু ওই প্রভাবশালী দুই নেতার বিষয় নয়- এটা দেশের মানুষেরই প্রত্যাশিত। বিএনপি গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় তাদের রাজনৈতিক পরিবর্তনকে কীভাবে নিচ্ছে এবং দেশবাসীর কাছে কীভাবে উপস্থাপন করছেন সেটাই এই সময়ের সব চেয়ে বিবেচ্য বিষয়। সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের সাথে বিএনপি রাজনীতির যে কলঙ্ক লেপন হয়েছে তা তাদেরই প্রমাণ করতে হবে যে. বিএনপি প্রকৃতঅর্থেই সেই ভাবনার সাথে নেই। দেশের মানুষ যা জানে সেটা অলীক কিছু নয়। সাম্প্রদায়িক শক্তির হাত ধরে বিএনপি যে সন্ত্রাসের রাজনীতির সূচনা করেছিল তা কিন্তু দেশের মানুষের স্মৃতি থেকে মুছে যাওয়ার সুযোগ নেই। বরং মানুষের যে আস্থাহীনতা বিএনপির প্রতি, তা আস্থায় ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে অতীত রাজনীতির দায় অবশ্যই স্বীকার করতে হবে। একই সাথে বিএনপি গণতন্ত্র চর্চায় আগামীতে দলকে ইতিবাচক ধারায় কীভাবে এগিয়ে নিতে চায় তা দেশের মানুষকেই জানাতে হবে, তাদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে- আস্থায় ফেরাতে হবে। সেটা না করে বিদেশ নির্ভরতা বিএনপি রাজনীতির জন্য বুমেরাং হয়ে যেতে পারে। মানুষ এটি পছন্দ করছে না বা করেনা সেটা বিএনপিকেই উপলব্ধি করা দরকার। বিএনপি নেতৃত্বকে জাতীয় ও বিশ্ব রাজনীতির বাস্তবতার দিকে দৃষ্টি রেখেই দেশের মানুষের ওপরই নির্ভর করতে হবে, মানুষকে আস্থায় ফেরাতে হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ