বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে ইরানে ইন্টারনেট নিষেধাজ্ঞা শিথিল যুক্তরাষ্ট্রের

আপডেট: সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২২, ১২:২৩ অপরাহ্ণ

ইরানের পতাকা। ছবি: রয়টার্স

সোনার দেশ ডেস্ক :


বিক্ষোভকারীদের সমর্থনে ইরানে ইন্টারনেট পরিষেবার ওপর নিষেধাজ্ঞা শিথিলের উদ্যোগ নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। বাইডেন প্রশাসনের তরফে ইতোমধ্যেই এ সংক্রান্ত একটি লাইসেন্স জারি করা হয়েছে। ওয়াশিংটন বলছে, এই পদক্ষেপের লক্ষ্য হচ্ছে ইরানের মানুষের জন্য ‘তথ্যের অবাধ প্রবাহকে সমর্থন করা।’

এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।
মার্কিন ট্রেজারি ডিপার্টমেন্ট শুক্রবার জানিয়েছে, ইরানি কর্তৃপক্ষ বিক্ষোভকে ব্যাহত করতে এবং ‘বিশ্বকে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের ওপর তার সহিংস দমন-পীড়ন দেখা থেকে বিরত রাখতে’ দেশে ইন্টারনেট অ্যাক্সেস বন্ধের পদক্ষেপ নিয়েছে। এর প্রতিক্রিয়ায় পাল্টা ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ওয়াশিংটন।

ট্রেজারি দফতরের ডেপুটি সেক্রেটারি ওয়ালি আদেয়েমো এক বিবৃতিতে বলেছেন, জনগণকে নজরদারির জন্য তেহরানের প্রচেষ্টা মোকাবিলায় ইরানের মানুষকে সাহায্য করছে যুক্তরাষ্ট্র।

তিনি বলেন, সাহসী ইরানিরা মাহসা আমিনির মৃত্যুর প্রতিবাদে রাস্তায় নেমেছে। ফলে যুক্তরাষ্ট্র দেশটির মানুষের কাছে তথ্যের অবাধ প্রবাহের জন্য তার সমর্থন দ্বিগুণ করছে।

আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, মার্কিন লাইসেন্স সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম, ভিডিও কনফারেন্সিং এবং ক্লাউড পরিষেবার পাশাপাশি ‘অ্যান্টি-সেন্সরশিপ সরঞ্জাম এবং সম্পর্কিত সফ্টওয়্যার’ অনুমোদনের ছাড় আরও প্রসারিত করবে।

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন লাইসেন্স দেওয়ার বিষয়টিকে স্বাগত জানিয়েছেন। ইরানের বিরুদ্ধে আমিনির মৃত্যুতে ক্ষুব্ধ ‘শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের সহিংসভাবে দমনের’ অভিযোগ করেছেন তিনি।

ইরানের জনগণ যাতে বিচ্ছিন্ন এবং অন্ধকারে পড়ে না থাকে সেটি নিশ্চিতকল্পে ওয়াশিংটনের সহায়তার কথাও জানান অ্যান্টনি বিøঙ্কেন। তিনি বলেন, ইরানি জনগণের মৌলিক অধিকারের প্রতি সম্মান জানানোর দাবিতে অর্থপূর্ণ সমর্থন দেওয়ার ক্ষেত্রে এটি একটি জোরালো পদক্ষেপ।
সা¤প্রতিক দিনগুলোতে ইরানের বিক্ষোভকারীদের প্রতি অব্যাহত সমর্থন জানিয়ে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। বুধবার জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে দেওয়া ভাষণেও বিষয়টির অবতারণা করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেন, ‘আজ আমরা ইরানের সাহসী নাগরিক ও সাহসী নারীদের পাশে দাঁড়িয়েছি যারা এই মুহূর্তে তাদের মৌলিক অধিকার সুরক্ষিত করার জন্য বিক্ষোভ করছে।’

এই সপ্তাহের গোড়ার দিকে মার্কিন প্রশাসন আমিনির মৃত্যু এবং পরবর্তীতে বিক্ষোভে দমন-পীড়নের ঘটনায় ইরানের ‘নৈতিকতা পুলিশের’ ওপর নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের ঘোষণা দেয়।

ইরানের কঠোর পোশাকবিধি লঙ্ঘনের দায়ে গ্রেফতার হয়েছিলেন কুর্দিস্তানের নারী মাহশা আমিনি (২২)। নৈতিকতা পুলিশের হেফাজতে অসুস্থ হয়ে পড়ার পর গত ১৬ সেপ্টেম্বর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় দেশটির কঠোর পোশাকবিধির প্রতিবাদে এবং নারীদের অবাধ চলাচলের স্বাধীনতার দাবিতে বিক্ষোভ শুরু হয়। বিপরীতে পাল্টা বিক্ষোভ করে সরকার সমর্থকরা।

ইরানের গোয়েন্দামন্ত্রী মাহমুদ আলাভি অভিযোগ করেছেন, ‘দেশদ্রোহীরা ধর্মীয় মূল্যবোধকে পরাজিত করতে চাইছে।’ বিক্ষোভের ‘নেপথ্যে থাকা শত্রুদের’ মোকাবিলার ঘোষণা দিয়েছে সেনাবাহিনী।
তথ্যসূত্র: বাংলাট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ