বিদায় নবমী, আজ বিজয়া দশমী

আপডেট: অক্টোবর ৫, ২০২২, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


হিন্দু শাস্ত্রমতে মহানবমী বা দুর্গা নবমী হল আসুরিক শক্তি বধে বিজয়ের দিন। দুর্গা রুদ্ররূপ (মা কালী) ধারণ করে মহিষাসুর এবং তার তিন যোদ্ধা চন্ড, মুন্ড এবং রক্তবিজকে হত্যা করেন। নবমী তিথি শুরুই হয় সন্ধিপূজা দিয়ে। সন্ধিপূজা হয় অষ্টমী তিথির শেষ ২৪ মিনিট ও নবমীর সূচনার প্রথম ২৪ মিনিট জুড়ে। মূলত দেবী চামুন্ডার পূজা হয় এই সময়ে। একশো আটটি মাটির প্রদীপ জ্বালিয়ে ও একশ আটটি পদ্মফুল নিবেদন করা হয় দেবীর চরণে। আর ঠিক এই কারণে পূজার মন্ত্রেও সেই বিশেষত্ব উল্লেখ করা হয়েছে । আজ বুধবার (৫ অক্টোবর) বিজয়া দশমী।

এর আগে শারদীয় দূর্গোৎসবের মহা নবমীর দিন মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) বিকেল থেকে থেমে থেমে বৃষ্টিপাত হয় রাজশাহীতে। এরপর পূজামন্ডপগুলোতে ছিল মানুষের উপচে পড়া ভিড়। বৃষ্টিতে ভিজেও কেউ কেউ এক মন্ডপ থেকে অন্য মন্ডপে গিয়ে দেবীর আরাধনা করেন।

দুপুরে নবমী পূজা শেষে সব মন্দিরেই অঞ্জলি প্রদান ও ভক্তদের মধ্যে প্রসাদ বিতরণ করা হবে। এছাড়াও সন্ধ্যায় বিভিন্ন পূজামন্ডপে অনুষ্ঠিত হবে বিভিন্ন ভক্তিমূলক সংগীত, রামায়ণ পালা, আরতিসহ নানা রকমের অনুষ্ঠান।

জানা গেছে- নবমীর বিশেষত্ব যদি কিছু থাকে তা হল হোম-যজ্ঞ অনুষ্ঠানের মধ্যে। নবমীতেই মূলত হোম হয়ে থাকে, ব্যতিক্রমী নিয়মও থাকতে পারে। মূলত আটাশটা বা একশো আটটা নিখুঁত বেলপাতা লাগে। বালি দিয়ে যজ্ঞের মঞ্চ বানিয়ে বেলকাঠ ঠিকভাবে নিয়ম মতো সাজিয়ে পাটকাঠি দিয়ে আগুন ধরিয়ে ঘি’তে চুবিয়ে বেলপাতাগুলো নিবেদন করা হয়। তারপর সবার শেষে একটি কলা চেলীতে বেঁধে পান নিয়ে সেটা ঘি’তে চুবিয়ে পূর্ণাহুতি দেওয়া হয়। তারপর তার মধ্যে দই দেওয়া হয় ও দুধ দিয়ে আগুন নেভানো হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ