বিদায় মাহে রমজান

আপডেট: মে ১২, ২০২১, ১২:৩৯ পূর্বাহ্ণ

ড. মাওলানা ইমতিয়াজ আহমদ:


আল্লাহ রাব্বুল আলামিন দুটি উদ্দেশ্য সামনে রেখে রমজান দান করেছিলেন। একটি হচ্ছে তাকওয়া অর্জন, অপরটি গুনাহ মাফ। রমজান বিদায়ের পথে। আজ চাঁদ উঠলে কাল ইদ। আমাদের ভেবে দেখা দরকার আমরা এই রমজানে সেই উদ্দেশ্য অর্জনে সক্ষম হয়েছি কিনা। শেষ মুহূর্তে আল্লাহর কাছে দোয়া করে চেয়ে নিতে হবে কাক্সিক্ষত উদ্দেশ্য। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, যে ব্যক্তি রমজান পাওয়া সত্ত্বেও তার গুনাহ মাফ করিয়ে নিতে পারল না, সে হতভাগা। শেষ মুহূর্তে এসে আমাদের চেষ্টা করতে হবে আমরা যেন হতভাগা না হই। হাদিস শরিফে এসেছে রমজানের শেষ রাত্রে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন বান্দার জন্য পুরষ্কার ঘোষণা করেন। অতঃপর যখন ঈদের দিন হয় অর্থাৎ ইদুল ফিতরের দিন, তখন আল্লাহ তায়ালা রোজাদার বান্দাদের সম্পর্কে ফেরেশতাগণের সাথে গর্ব করে জিজ্ঞাসা করেন, হে আমার ফেরেশতাগণ! বল দেখি, আমার কর্তব্যপরায়ণ প্রেমিক বান্দার বিনিময় কি হবে? ফেরেশতাগণ বলেন, হে প্রভু! পূর্ণরূপে তার পারিশ্রমিক দান করাই তো তার প্রতিদান। আল্লাহ বলেন, আমার বান্দা-বান্দিরা তাদের উপর ন্যস্ত দায়িত্ব পালন করেছে, অতঃপর আমার কাছে দোয়া করতে করতে ঘর থেকে বের হয়ে (ইদগাহে) গমন করেছে। আমার সম্মান, মর্যাদা, দয়া, বড়ত্ব ও মহত্বের কসম, জেনে রাখ- আমি তাদের দোয়া কবুল করবো। অতঃপর বলেন, হে আমার বান্দাগণ! তোমার এখন ফিরে যাও, আমি তোমাদের পাপসমূহকে নেকির দ্বারা পরিবর্তন করে দিলাম। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেন, অতঃপর তারা ক্ষমাপ্রাপ্ত হয়ে বাড়ি ফিরে আসে।
যদি চাঁদ না উঠে তাহলে আগামীকাল ৩০শে রমজান। অত্যন্ত দুঃখের বিষয় ইদের প্রস্তুতির কারণে আমরা রমজানের শেষ দিনকে খুবই অবহেলা করে কাটাই। নামাজের ঠিক থাকে না। প্রথম রোজার ইফতার যে গুরুত্বের সাথে করি, শেষ দিনের ইফতারকে খুবই অবহেলা করে আদায় করা হয়। অথচ শেষ দিবসের ইফতারেও দোয়া কবুল হয়। শেষ দিবসেও রমজানের পূর্ণ ফজিলত বিদ্যমান থাকে। বরং হাদিসে আছে, আল্লাহ তায়ালা সারা মাস যে পরিমাণ লোককে ক্ষমা করেন এবং পুরষ্কৃত করেন তার সমপরিমাণ মানুষকে ক্ষমা ও পুরষ্কার প্রদান করে রমজানের শেষ সময়ে।
যাদের জাকাত-ফিতরা এবং প্রয়োজনীয় দান সদকা এখনো করা হয়নি রমজান শেষ হওয়ার আগেই তা আদায়ে সচেষ্ট হওয়া উচিত। কারণ এ সময় চলে গেলে ৭০ গুণ ফজিলত থেকে বঞ্চিত হতে হবে।
আল্লাহ রাব্বুল আলামিন দীর্ঘ একমাস সিয়াম সাধনার মাধ্যমে আমাদের তাকওয়ার অনুশীলন করালেন। গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার প্রশিক্ষণ দিলেন। ইবাদত করার অভ্যাস করালেন। রমজানের সার্থকতা হচ্ছে রমজান চলে গেলেও যেন আমরা তাকওয়ার পথে থাকতে পারি। রমজান চলে গেলেও যেন ইবাদতের উপর থাকতে পারি। রমজানের আগের জীবন আর পরের জীবন যদি এক হয় তাহলে রমজান কোনো কাজেই আসেনি বলতে হয়। এ জন্য রমজানের সকল শিক্ষা বাস্তব জীবনে প্রয়োগ করাই হচ্ছে রমজানের আগমনের ও প্রস্থানের সার্থকতা। আল্লাহ রাব্বুল আলামিন আমাদের সবাইকে রমজানের প্রকৃত উদ্দেশ্য অর্জনের তাওফিক দান করুন। আল্লাহ আমাদের খাঁটি মুত্তাকি করুক এবং গুনাহ মাফ করে নিষ্পাপ করে দিন। আমিন সবাই সুস্থ থাকুন। ধনী-গরিব সকলে মিলে ইদের আনন্দে একাকার হয়ে যাক। ধুয়ে মুছে যাক অতীতের সকল গ্লানি। এই কামনায় বিদায় মাহে রমজান। সবাইকে ইদের শুভেচ্ছা। ইদ মোবারক।
দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনা শেষে আসন্ন ইদ যেন সবার জন্য আনন্দময় হয় আল্লাহ তায়ালার দরবারে সেই কামনা করছি।
লেখক: পেশ ইমাম, বাংলাদেশ রেশম গবেষণা ও প্রশিক্ষণ ইন্সটিটিউট জামে মসজিদ, রাজশাহী