বিপিএলে খেলছেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা, তবে…

আপডেট: অক্টোবর ১, ২০১৭, ১২:০৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


আগামী ৩ নভেম্বর থেকে শুরু হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের অন্যতম আকর্ষণ বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল)। তবে পঞ্চম আসর শুরুর আগে কিছুটা মুশকিলে পড়েছে বিপিএলের ফ্র্যাঞ্চাইজি দলগুলো। আসরের শুরুতে পাকিস্তানি ক্রিকেটারদের পাচ্ছে না তারা। পাকিস্তানে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় টি-২০ কাপই এই মুশকিলের কারণ। বিপিএল চলাকালিন সময়েই যে তাদের ম্যাচগুলো পড়েছে।
পাকিস্তানের জাতীয় টি-২০ কাপ শুরু হবে ০৭ নভেম্বর। চলবে ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত। এই টুর্নামেন্টটি আগেই অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে বিশ্ব একাদশ দলের পাকিস্তান সফরের কারণে উক্ত টুর্নামেন্টটি পিছিয়ে যায়। নতুন সময়সূচি করার পর দেখা যায় ঠিক বিপিএল এবং দক্ষিণ আফ্রিকার গ্লোবাল টি-২০ লিগের সময়ে পড়েছে এই টুর্নামেন্টের ম্যাচগুলো। এতে বিপাকে পড়েছেন পাকিস্তানি খেলোয়াড়রা। তাদের অনেকেই খেলবেন এই বৈশ্বিক লিগ দুটিতে।
তবে একটি শর্ত জুড়ে দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। পিসিবির মূল চুক্তিতে থাকা সকল খেলোয়াড়কেই খেলতে হবে জাতীয় টি-২০ কাপে। অবশ্য এসব খেলোয়াড়ের বৈশ্বিক লিগ দুটিতে খেলার একটি রাস্তা খোলা রেখেছে তারা। মূল চুক্তির অধীনে থাকা ক্রিকেটারদের ০৭ নভেম্বর থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত ঘরোয়া এই কাপে অংশগ্রহন করতে হবে। তাহলে তারা পিসিবির কাছ থেকে বিপিএল এবং গ্লোবাল টি-২০ লিগে খেলার অনাপত্তিপত্র পাবে। তবে এ শর্ত কাজ করবে না চুক্তির বাইরে থাকা খেলোয়াড়দের জন্য। জাতীয় দল থেকে অবসর নেয়ায় শহীদ আফ্রিদি, মিসবাহ উল হক ও ইউনিস খানের মতো খেলোয়াড়রা এই টি-২০ কাপ না খেললেও পিসিবির অনাপত্তিপত্র পাবেন। সেই সঙ্গে সোহেল তানভীর, মোহাম্মদ সামির মত যেসব খেলোয়ার পিসিবির মূল চুক্তিতে নেই তারাও পাবেন এই অনাপত্তিপত্র।
উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৩ সালে বিপিএলের দ্বিতীয় আসরেও অনাপত্তিপত্র না পাওয়ার কারণে খেলতে পারেননি পাকিস্তানী খেলোয়াড়রা। তবে বাংলাদেশের প্রচুর পাকিস্তানি ক্রিকেট ভক্ত থাকায় সে দেশের তারকা খেলোয়াড়দের পেলে বিপিএলের আকর্ষণ অনেকটাই বাড়ে। এবার পুরোটা না পেলেও শেষদিকের সময়টাতে তাদের পেয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হবে বিপিএলের দলগুলোকে।