বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর ১১২ তম মৃত্যুবার্ষিকী

আপডেট: আগস্ট ১১, ২০২০, ১২:০৬ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক


বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর ১১২ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯০৮ সালে মাত্র ১৮ বছর বয়সে বিপ্লবী ক্ষদিরামকে ফাঁসিতে হত্যা করে দখলদার ইংরেজ সরকার।
ছোটবেলা থেকেই সেবামূলক ও দুঃসাহসিক কাজের প্রতি ক্ষুদিরামের সীমাহীন আগ্রহ ছিল। মেদিনীপুর কলেজিয়েট স্কুলে পড়ার সময় পরিচয় হয় বিপ্লবী সত্যেন্দ্রনাথ বসুর সঙ্গে। যোগ দেন ‘যুগান্তর’ দলে
১৯০৮ সালের ১১ আগস্ট বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করে তৎকালীন ইংরেজ সরকার। তাকে যখন ফাঁসির মাধ্যমে হত্যা করা হয় তখন তাঁর বয়স মাত্র ১৮ বছর ৭ মাস ১১ দিন।
তিনি ১৯০৮ সালের ৩০ এপ্রিল সহযোগী বিপ্লবী প্রফুল্ল চাকীর সাথে মিলে অত্যাচারী কিংসফোর্ডের গাড়ি লক্ষ্য করে বোমা হামলা পরিচালনা করেন এবং পুলিশের হাতে ধরা পড়েন। এ মামলায় ১৩ জুন তার মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেয়া হয়। কিশোর ক্ষুুদিরাম বীরের মতো ফাঁসির দড়ি গলায় পরেছিলেন।
১৮ বছরের এক যুবকের সাহসী এই আত্মদান জাগিয়ে তুলেছিল ভারতবাসীকে; শক্তিশালী করেছিল স্বাধীনতা আন্দোলন।
ক্ষুদিরাম বসুর জন্ম ১৯৮৯ সালের ৩ ডিসেম্বর। মহান এ বিপ্লবীকে চিরদিন শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে সব স্বাধীনতাকামী মানুষ। এর মধ্যেই ক্ষুদিরামের বিদ্রোহী সত্তা বেঁচে থাকবে প্রতিটি হৃদয়ে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ