বিবর্ণ বোলিংয়ে বিমর্ষ হাথুরুসিংহে

আপডেট: মার্চ ২৩, ২০১৭, ১২:২৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



ওয়ানডে সিরিজের আগে একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে বোলারদের অগ্নি পরীক্ষায় বসতে হয়েছে। এমনকি ইনজুরিতে থেকে ফেরা মাশরাফিকেও পরীক্ষা দিতে হয়েছে। যদিও বোলারদের পারফরম্যান্সে খানিকটা এগিয়ে সানজামুল ও রুবেল হোসেন। ইনিংসের শেষ দিকে কলম্বো ক্রিকেট ক্লাব মাঠের ক্লাব হাউজে হঠাৎ করেই উপস্থিত হয়েছিলেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। যেখানে লঙ্কান প্রধান নির্বাচকসহ সাংবাদিকরা বসে ছিলেন। ক্লাব হাউজে ঢুকেই সোজা স্কোরারের সঙ্গে কথা বললেন। জানতে চাইলেন তাসকিনের বোলিং ফিগার। সন্তুষ্ট হতে পারলেন না তিনি। সবমিলিয়ে প্রধান কোচ হাথুরুসিংহের চোখে মুখে ফুটে উঠেছিল হতাশা!
প্রস্তুতি ম্যাচে বোলিংয়ে গোড়াপত্তন করেন অধিনায়ক মাশরাফি। অপরপ্রান্তে ছিলেন তাসকিন আহমেদ। এই দুই জন মিলে প্রথম স্পেলে ৭ ওভার বোলিং করেছেন। ওই স্পেলে তাসকিন বেশকিছু শর্ট বল দিয়েছিলেন। ৩ ওভারে তাসকিন আহমেদ খরচ করেছেন ২৭ রান। তার করা শর্ট বলগুলোকে অনায়াসে খেলেছেন লঙ্কান ওপেনাররা। এমনকি প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে তাসকিনকে হজম করতে হয়েছে বিশাল এক ছক্কা। লেগ স্ট্যাম্পের ওপরের শর্ট বলে এক পা এগিয়ে এসে মিড উইকেট দিয়ে বিশাল ছয় মারেন দিলশান মুনাবিরা। পরের বলে কাট করে থার্ড ম্যান অঞ্চল দিয়ে আবারও চার।
অবশ্য প্রথম আঘাতটি হানেন এই ফাস্ট বোলার। তাসকিনের ফুলার লেন্থ বল অন সাইডে ফ্লিক করতে গিয়ে বল মিস করেন দিলশান মুনাবিরা। ডানহাতি এ পেসারের এলবিডাব্লিউর আবেদনে সাড়া দেন আম্পায়ার। সবমিলিয়ে ৬ ওভার বোলিং করে ৫১ রান খরচ করে একটি উইকেট নিয়েছেন এই পেসার।
এদিকে ইনজুরি থেকে ফিরে এসে দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচ খেললেন মাশরাফি। প্রথমটি খেলেছিলেন বাংলাদেশে। তবে কলম্বোতে শুরুটা ভালো হয়নি নড়াইল এক্সপ্রেসের। ৪ ওভারে ২১ রান খরচ করে প্রথম স্পেল শেষ করেছেন। দ্বিতীয় স্পেলেও সাফল্য পাননি। সেখানে ৩ ওভার বোলিং করে খরচ করেছেন ২৮ রান। তবে শেষ স্পেলে এসে সাফল্যের মুখ দেখেন সানজামুলের দুর্দান্ত ক্যাচে। মাশরাফি সবমিলিয়ে ৯ ওভার বোলিং করেছেন। তাতে ৬৬ রান খরচায় নিয়েছেন একটি উইকেট।
ওয়ানডে স্কোয়াডে থাকা বোলারদের মধ্যে রুবেল খানিকটা ভীতি ছড়াতে সমর্থ হয়েছেন। যদিও ডানহাতি এই পেসার রান দিয়েছেন ৬৭টি। তাতে কোনও উইকেট পকেটে পুড়তে পারেন নি।
এদিকে স্পিনারদের মধ্যে বাঁহাতি স্পিনার সানজামুল ইসলাম সমীহ জাগানিয়া বোলিং করেছেন। প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানরা বাঁহাতি স্পিনারকে সমীহ করে খেলেছেন। প্রথম বারের মতো জাতীয় দলের ওয়ানডে স্কোয়াডে সুযোগ পাওয়া এই ক্রিকেটার জাতীয় দলের জার্সিটা পড়বেন কিনা সেটা ২৫ মার্চের সকালেই নিশ্চিত হওয়া যাবে! তবে বুধবারের রিহার্সেলটা ভালোই দিলেন ঢাকা লিগে আবাহনীর হয়ে খেলা এই ক্রিকেটার।
ম্যাচের ৩১তম ওভারের পঞ্চম বলে সানজামুল ইসলামের হাওয়ায় ভাসানো বলটি ডিপ মিড উইকেট দিয়ে সীমানা পার করেন মিলিন্দা সিরিবর্ধনে। বল মাঠ পেরিয়ে গিয়েছিল রাস্তায়। বিশাল এক ছয় খেয়ে ওভারের শেষ বলে ঠিকই প্রতিশোধ নিয়ে নেন বাঁহাতি এ স্পিনার। প্রস্তুতি ম্যাচে বোলিংয়ে একদমই ‘বাজে’ ছিলেন শুভাগত হোম। একমাত্র তিনিই বল করেছেন দশ ওভার। শুভাগতর বলে ছিল না কোন টার্ন। পুরো সময়টাতে তাকে খানিকটা হতাশই মনে হয়েছিল। মোট ৫৯ রান খরচ করে উইকেট শূন্য ছিলেন এই স্পিনার।-বাংলা ট্রিবিউন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ