বিভিন্ন দাবিতে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি প্রদান

আপডেট: আগস্ট ২৫, ২০১৭, ১:৩৯ পূর্বাহ্ণ

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি


ঈদুল আযাহকে সামনে রেখে অসাধু চক্র, মলম পার্টি, অজ্ঞান পার্টির দৌরাত্ম্য বেড়ে যায়। আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটে। আবার কোরবানি করে ময়লা-আবর্জনায় পরিবেশ দূষণ রোধ ও আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে রাজশাহীর জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপি প্রদান করে ইয়ুথ অ্যাকশন ফর সোস্যাল চেঞ্জ-ইয়্যাস নামের সামাজিক সংগঠন তরুণরা।
স্মারকলিপিতে তারা উল্লেখ করে, এ দিনটিতে মুসলমানেরা তাদের সাধ্যমত ধর্মীয় নিয়মানুযায়ী উট, গরু, দুম্বা কিংবা ছাগল কোরবানি বা জবাই দেয়। কিন্তু এই পশু কোরবানির পর সৃষ্ট বর্জ্য নিয়েই যত ঝামেলা। সুষ্ঠুভাবে কোরবানি না দিলে পরিবেশ দূষণ ঘটে, যা ধর্মীয় এবং সামাজিক দৃষ্টিকোণ থেকেও অগ্রহণযোগ্য। কিন্তু বিভাগীয় শহর রাজশাহীসহ সারা দেশের ঈদ-উল-আযহা পরবর্তী অভিজ্ঞতা বড়ই তিক্ত। তাই ঈদ পরবর্তী সময়ে পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখা অতি জরুরি। পশু জবাইয়ের ফলে সৃষ্ট বর্জ্য যে পরিবেশ দূষণ করে তা মানুষের সামাজিক মর্যাদা ক্ষুন্ন করে। আর তাই দ্রুত কোরবানির বর্জ্য অপসারণ করা প্রয়োজন।
আরো উল্লেখ করা হয়, কোরবানীর পশুর হাটগুলো যততত্র বসে এবং কোরবানিদাতারা পশু কিনে অ্যাপার্টমেন্ট বা বাড়িতে রাখে। যেখানে ঈদের কয়েকদিন ধরে পশুগুলো রাখার উপযোগী তেমন ব্যবস্থা থাকে না। অনেকে পশুর খড় এবং অন্যান্য জিনিস এলোমেলোভাবে যেখানে-সেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে রাখে যা কি-না পশু জবাইয়ের আগেই পরিবেশ দূষিত করে। সিটি কর্পোরেশন এবং জেলা প্রশাসনের জন্য এই অতিরিক্ত বর্জ্য সরানো একটা কঠিন কাজ। এই সমস্যা আরো প্রকট হয় ঈদের দিন লক্ষ লক্ষ লোক রাস্তার পাশে কোরবানি দেয় এবং রাস্তার পাশে রক্ত জমে থাকে।
স্মারকলিপিতে তারা আরো জানায় যে, ঈদের আনন্দ প্রিয়জনদের সঙ্গে ভাগাভাগি করে নিতে নাড়ীর টানে বাড়ি ফিরে প্রচুর মানুষ। তাদের কেউ সড়ক, কেউ রেল, আবার কেউবা নৌপথে বাড়ি ফিরে। এতে সড়ক, রেল ও নৌ পথের যানবহনগুলোতে সৃষ্টি হয় বাড়তি চাপ। আর এ বাড়তি চাপ সামলাতে সড়ক, রেল ও নৌ পথে সংযোজন করা হয় অতিরিক্ত যানবাহন। তার পরেও যানবহনগুলোতে বহন করা হয় ধারণ ক্ষমতার অতিরিক্ত যাত্রী। এর ফলে যাত্রা পথে ঘটে অনাকাঙ্খিত দূর্ঘটনা। দূর্ঘটনায় যাত্রীসহ সড়কের সাধারণ পথচারীরা গুরুত্বর আহত হয়। এমনকি তাদের অনেকেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পরে। এতে ঈদের খুশি মুর্হুর্তের মধ্যেই পরিণত হয় দুর্ঘটনার বিষাদে।
স্মারকলিপি প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মো. শামীউল আলীম শাওন, সাধারণ সম্পাদক শাহরুখ আহমেদ শুভ, নির্বাহী সদস্য সুমন হালদার প্রমুখ।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ