বিশ্বজুড়ে সাপের খাদক মাকড়সা, অবাক বিজ্ঞানীরা

আপডেট: জুন ২৪, ২০২১, ৯:৪৯ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


মাকড়সা কী সাপকে মেরে ফেলতে পারে এবং খেয়েও ফেলতে পারে? প্রশ্নটা ছোট বাচ্চাদের মতো শোনাতে পারে, কিন্তু এটি জার্নাল অব অ্যারাকনোলজিতে প্রকাশিত একটি নতুন গবেষণার বিষয়।
চমকপ্রদ উত্তরটি হলো, হ্যাঁ। মাকড়সা রীতিমতো বিষধর সাপদের সঙ্গে যুদ্ধ করে, তাকে হত্যা করে এবং তার মাংস খায়। মাকড়সার মধ্যে এমনই বৈশিষ্ট্যের সন্ধান পেয়েছেন গবেষকরা। আর এ ঘটনা এতো বেশি যে গবেষকরা তাজ্জব বনে গেছেন।
নেতৃত্বদানকারী গবেষক সুইজারল্যান্ডের বাসেল ইউনিভার্সিটির স্পাইডার এক্সপার্ট মার্টিন নিফেলার বলেন, ‘আমরা ভীষণ অবাক হয়েছি এটা দেখে যে, মাকড়সার সাপ হত্যার বিষয়টি পৃথিবীর সব মহাদেশেই (আন্টার্কটিকা ব্যতীত) রয়েছে। বিভিন্ন প্রজাতির মাকড়সা সাপকে হত্যা করতে এবং খেতে সক্ষম। অনেক প্রজাতির সাপ মাঝে মধ্যে মাকড়সার শিকারে পরিণত হয়ে মারা যায়। এই বিষয়গুলো এতোদিন অজানা ছিল।’
গবেষকরা বিশ্বজুড়ে মাকড়সার সাপ হত্যার ৩০০টিরও বেশি ঘটনা পর্যবেক্ষণ করেছেন। যার মধ্যে ৪০টিরও বেশি মাকড়সা প্রজাতি এবং ৯০টিরও বেশি সাপের প্রজাতি রয়েছে।
নিফেলার এবং গবেষণাপত্রের সহ-লেখক ইউনিভার্সিটি অব জর্জিয়ার স্নেক এক্সপার্ট জে. হুইটফিল্ড জানান, ছোট প্রজাতির মাকড়সাদের মধ্যেই মূলত সাপ শিকারের প্রবণতা বেশি। মাকড়সারা সাধারণত ৯-১০ ইঞ্চি লম্বা সাপদেরই আক্রমণ করে। তবে এই ছোট সাপগুলো মাকড়সার তুলনায় বহুগুণ বড়, যেমন আরাকনিড মাকড়সার দেহের গড় দৈর্ঘ্য অর্ধ ইঞ্চিরও কম।
গবেষণায় মাকড়সার সাপ শিকারের কৌশলও উঠে এসেছে। মাকড়সা তার জাল দিয়ে প্রথমেই এমনভাবে সাপটিকে আটকে ফেলে যে, সেই বাঁধন ছেঁড়া সম্ভব হয় না। এরপর মাকড়সার বিষে সাপের মৃত্যু হয়। মাকড়সা বনাম সাপের ৩১১টি ঘটনার মধ্যে ৮৭ শতাংশ ক্ষেত্রেই সাপকে হত্যা করতে সফল হয়েছে মাকড়সা। ১.৫ শতাংশ ক্ষেত্রে সাপ নিজ থেকে পালিয়ে গেছে। ১১ শতাংশ ক্ষেত্রে মানুষজন সাপকে মুক্ত হতে সহায়তা করেছে। বেশিরভাগ ঘটনা ঘটেছে বনের মধ্যে।
গবেষকরা মতে, আগের ধারণার চেয়ে বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্যের ক্ষেত্রে মাকড়সার বড় ভূমিকা রয়েছে। প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষার জন্য মাকড়সার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পুরোপুরি বুঝতে তাদের পুরো খাদ্যাভ্যাস বোঝা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এছাড়া মাকড়সার বিষ নিয়েও গবেষণা প্রয়োজন।
তথ্যসূত্র: রাইজিংবিডি

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ