বিশ্বের কাছে এই সমীহটাই ধরে রাখতে চায় টাইগাররা

আপডেট: সেপ্টেম্বর ৮, ২০১৭, ১২:৪৫ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


গত বছরের কথা। ইংল্যান্ডকে চট্টগ্রামে প্রায় হারাতে হারাতেও পারা গেলো না। পরে ঢাকায় গিয়ে প্রথমবারের মতো ক্রিকেটের জনকদের হারিয়ে সিরিজ ড্র করে ফেললো গোটা ক্রিকেট বিশ্বকে চমকে দিয়ে। সিরিজ ১-১ এ ড্র। এরপর শ্রীলঙ্কার মাটিতে দেশের শততম জয়ে আবারো আরেকটি সিরিজ ১-১ ড্র। এবার অস্ট্রেলিয়ার মতো দলকে দেশে ডেকে এনে প্রথম টেস্টে হারিয়ে দেওয়া, যা চমকে দিয়েছিল শচীন টেন্ডুলকারকেও। ১-০ তে লিড নিয়ে গোটা বিশ্বে আরো একবার ঝড় তুললো টাইগাররা। প্রাণপণ লড়াইয়ে চট্টগ্রামে বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় টেস্ট জিতে নিয়ে মান বাঁচালো অস্ট্রেলিয়া। সিরিজ ড্রতে টানা তিনটি শক্তিশালী দেশের সাথে দেশ ও দেশের বাইরে শিরোপা ভাগাভাগি। এই যে সমীহ আর সম্মানটা বাংলাদেশ এখন গোটা ক্রিকেট বিশ্বে পাচ্ছে, সেটাই তো ছিল চাওয়া।
১৭ বছর বয়স যে টেস্ট দলটির তারা গত এক বছরে চমকের পর চমক দিয়ে যাচ্ছে। ওয়ানডেতে যে কোনো দলের জন্য আতঙ্ক। টেস্টেও হয়ে উঠছে তাই। দেশের মাটিতে বাংলাদেশ কতোটা ভয়ঙ্কর এখন সেটা সবাই জানে। এই পাল্টে যাওয়া ধরণীর বুকে পদচারণার স্বপ্ন নিয়েই তো এতো লড়াই। কিন্তু যারা মনে করেছিলেন ইংল্যান্ডকে হারিয়ে দেওয়া বিচ্ছিন্ন ঘটনা তাদের জন্য বৃহস্পতিবার ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে জোরালো একটি বার্তা পৌঁছে দেওয়ার প্রসঙ্গেই হাঁটলেন টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহীম, দবার্তা তো এটাই…অনেকেই ভেবেছিলো ইংল্যান্ডের সঙ্গে আমরা একটা টেস্ট কোনোমতে জিতে গেছি। তারা এখানে এসেছে। তারা কিন্তু এখানে এসে বলেছিল তারা ফেভারিট না। তারা সবাই বিশ্বাস করছিল যে বাংলাদেশ ভালো খেলে জিততেও পারে। এর থেকে বড় প্রাপ্তি আর কিছু হতে পারে না।’
কিছুদিন আগেও টেস্ট খেলতে নামলে যে বাংলাদেশকে সিরিজ বা ম্যাচের আগেই ক্রিকেট বিশ্ব হারিয়ে দিতো, সেই দলের এই ক্রমোন্নতি ও ধারাবাহিকতা একজন অধিনায়কের জন্য কতো বড় হতে পারে? সেটা মুশফিক ছাড়া আর কারো বলার উপায় নেই। কিন্তু সমীহ-সম্মান আদায় করে নেওয়ার যে ধারাবাহিক চেষ্টা সেটা যখন এক বিন্দুতে এসে মিলে যাচ্ছে তখন সামনের দিনে আরো ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার হুমকি দিয়ে মুশফিক খুশি মনে জানালেন, দএকটা প্রতিপক্ষ যখন আপনাকে সমীহ করা শুরু করবে…তারা ভাববে যে বাংলাদেশ ডেঞ্জারাস টিম এবং ভাববে বাংলাদেশ হোম কন্ডিশনে শুধু ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টিতে না…টেস্টেও বড় শক্তি হতে যাচ্ছে আস্তে আস্তে। এটা বড় বার্তা।’
নিজেদের জন্য এসব টানা সাফল্যকে অনেক বড় প্রেরণার ব্যাপার উল্লেখ করে এটা ধরে রাখার প্রতিশ্রুতি অধিনায়কের, দএটা বাংলাদেশের জন্য বড় অনুপ্রেরণা। আমরা আরও হার্ডওয়ার্ক করবো এবং এই অনুপ্রেরণা সবাই কাজে লাগাবে। বিশ্ব ক্রিকেটের সবাই আমাদেরকে সম্মান দেবে। সাকিবও প্রথম টেস্টের পর এ কথা বলেছে। এটা আমাদের জন্য বড় প্রাপ্তি আমাদেরকে এ অর্জন ধরে রাখতে হবে। এটা বড় দায়িত্ব আমরা সেটা ধরেও রাখতে পারবো।’