বিশ্বে বিলিয়নেয়ার বেড়েছে, ‘কমেছে’ ট্রাম্পের সম্পদ

আপডেট: মার্চ ২২, ২০১৭, ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



বিশ্বে বিলিয়নেয়ারের সংখ্যা এক বছরে ১৩ শতাংশ বেড়ে দুই হাজার ৪৩ জনে দাঁড়িয়েছে; ফোর্বসের করা ধনকুবেরদের তালিকায় এবারও শীর্ষে রয়েছেন মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস।
বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, অর্থবাণিজ্যের সাময়িকী ফোর্বস বিশ্বের শীর্ষ ধনীর বার্ষিক তালিকা প্রকাশ শুরুর পর গত ৩১ বছরের মধ্যে এবারই সর্বোচ্চ সংখ্যক বিলিয়নেয়ারের নাম পাওয়া গেল।
৮৬ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ সম্পদ নিয়ে ফোর্বসের এ তালিকায় শীর্ষস্থানে আছেন বিল গেটস। গত ২৩ বছরে ১৮ বারই তাকে শীর্ষ ধনী বলেছে ফোর্বস। আগের বছরের তালিকায় তার সম্পদের পরিমাণ দেখানো হয়েছিল ৭৫ বিলিয়ন ডলার।
ওয়ারেন বাফেটের সম্পদ বেড়েছে গেটসের চেয়েও বেশি, ১৪ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার। এ বছরের তালিকায় ৭৫ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ সম্পদ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের এ বিনিয়োগকারী আছেন শীর্ষ ধনীর তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে।
ফোর্বসের এবারের প্রতিবেদন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের ডোনাল্ড ট্রাম্পের দুঃসংবাদ নিয়ে এসেছে। আগের বছরও তিনি ধনীদের তালিকায় ২২০ নম্বরে ছিলেন, এবার চলে গেছেন ৫৪৪ নম্বরে।
রিয়েল এস্টেট ব্যবসায় মন্দার কারণে গত এক বছরে তার সম্পদের মূল্য ১ বিলিয়ন ডলার কমে সাড়ে তিন বিলিয়ন ডলারের কাছাকাছি হয়েছে বলে ফোর্বসের ধারণা।
“তার সম্পদের ৪০ শতাংশ নির্ভর করে ম্যানহাটানের ট্রাম্প টাওয়ার এবং এর এক মাইলের মধ্যে থাকা আটটি ভবনের উপর। ওই এলাকার সম্পদের মূল্য তুলনামূলকভাবে কমে গেছে,” বলছে ম্যাগাজিনটি।
তাছাড়া গত বছর ট্রাম্পের ৬৬ মিলিয়ন ডলার খরচ হয়েছে নির্বাচনী প্রচারে; ‘ট্রাম্প ইউনিয়ভার্সিটি’ নিয়ে শিক্ষার্থীদের এক মামলার মীমাংসায় তিনি ২৫ মিলিয়ন ডলার খুঁইয়েছেন।
রিপাবলিকান এ প্রার্থী জয়ী হওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের শেয়ার বাজারে চাঙ্গাভাব দেখা গেলেও তার সুফল ট্রাম্পের পকেটে যায়নি। ধারণা করা হয়, গত বছর নির্বাচনের আগেই ট্রাম্প শেয়ার বাজারে থাকা তার বেশিরভাগ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন।
তবে সব জায়গায় ‘ধরা খাননি’ যুক্তরাষ্ট্রের এই ধনকুবের প্রেসিডেন্ট। ফোর্বস বলছে, নির্বাচনে জেতার পর ফ্লোরিডায় ট্রাম্পের রিসোর্ট মার-আ-লগো’র মূল্য আগের চেয়ে ২৫ মিলিয়ন ডলার বেড়েছে।
বিবিসি জানিয়েছেন, ট্রাম্পের জয় আশীর্বাদ হয়ে এসেছে যুক্তরাষ্ট্রের অন্য ধনীদের জন্য। স্টক মার্কেট শক্তিশালী হওয়ায় দেশটির মোট ৫৬৫ জন বিলিয়নেয়ার এবার ফোর্বসের তালিকায় স্থান পেয়েছেন।
এরপরের অবস্থানে আছে চিন, তাদের ৩১৯ জন আছেন এ তালিকায়। ১১৪ বিলিয়নেয়ার নিয়ে জার্মানি আছে তৃতীয় স্থানে।
ফোর্বসের নতুন তালিকায় ১৮৩ জন ‘টেক বিলিয়নেয়ার’ স্থান পেয়েছেন, যাদের সবার মিলিত সম্পদের পরিমাণ এক ট্রিলিয়ন ডলার ছাড়িয়ে যাবে বলে জানিয়েছে বিবিসি।
ফোর্বসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৬ সালে সবচেয়ে বেশি টাকা বানিয়েছেন অ্যামাজন প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজস। এক বছরে সম্পদের পরিমাণ ২৭ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার বাড়ায় বেজোস পৌঁছে গেছেন শীর্ষ ধনীর তালিকার তৃতীয় স্থানে। এখন তার মোট সম্পদের অর্থমূল্য ৭২ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার।
ফেইসবুকের প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের অবস্থান তালিকার পাঁচ নম্বরে, ওরাকলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি এলিসন আছেন তালিকার সাতে।
ফোর্বসের শীর্ষ ১০
১. মাইক্রোসফটের সহ-প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস, সম্পদের পরিমাণ ৮৬ বিলিয়ন ডলার
২. যুক্তরাষ্ট্রের বিনিয়োগকারী ওয়ারেন বাফেট, সম্পদের পরিমাণ ৭৫ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার
৩. অ্যামাজন প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস, সম্পদের পরিমাণ ৭২ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার
৪. ইন্ডিটেক্স প্রতিষ্ঠাতা আমানসিও ওর্তেগা, সম্পদের পরিমাণ ৭১ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার
৫. ফেইসবুক প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ, সম্পদের পরিমাণ ৫৬ বিলিয়ন ডলার
৬. মেক্সিকোর ব্যবসায়ী কার্লোস স্লিম হেলু, সম্পদের পরিমাণ ৫৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার
৭. ওরাকলের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ল্যারি এলিসন, সম্পদের পরিমাণ ৫২ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার
৮. যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়ী চার্লস কোচ, সম্পদের পরিমাণ ৪৮ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার
৯. যুক্তরাষ্ট্রের ব্যবসায়ী ডেভিড কোচ, সম্পদের পরিমাণ ৪৮ দশমিক ৩ বিলিয়ন ডলার
১০. ব্লুমবার্গ প্রতিষ্ঠাতা মাইকেল ব্লুমবার্গ, সম্পদের পরিমাণ ৪৭ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার
ফোর্বস জানিয়েছে, এবার ১৯৫ জন নতুন বিলিয়নেয়ার তাদের তালিকায় উঠে এসেছেন।
২০৪৩ জন বিলিয়নেয়ারের এই তালিকায় সবচেয়ে কম বয়সী আলেক্সান্দ্রা অ্যান্ডারসনের সম্পদের পরিমাণ ১ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার। বাবার কাছ থেকে উত্তরাধিকার সূত্রে ওই সম্পদ পেয়েছেন ২০ বছর বয়সী এ নরওয়েজিয়ান তরুণী ।
আত্ম-প্রতিষ্ঠিত ধনীদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়স জন কলিসনের। ২৬ বছরের এ তরুণ ১ দশমিক ১ বিলিয়ন ডলারের সম্পদের মালিক।
এক বছরে নারী বিলিয়নেয়ারের সংখ্যাও বেড়েছে; গত বছরের তালিকায় নারী ছিলেন ২০২ জন নারী, এবার ২২৭ জন। তাদের মোট সম্পদের পরিমাণ ৮৫২ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলার বলে জানিয়েছে বিবিসি।
ল’রেল কসমেটিকসের স্বত্ত্বাধিকারী ফ্রান্সের লিলিয়ান বেটেনকোর্ট ৩৯ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলারের সম্পদ নিয়ে নারী বিলিয়নেয়ারদের মধ্যে শীর্ষে অবস্থান করছেন।
ফোর্বস বলছে, ধনী নারীদের বেশিরভাগই উত্তরাধিকার সূত্রে সম্পদ পেয়েছেন। ব্যতিক্রম ১৫ জন ‘আত্ম-প্রতিষ্ঠিত নারী’র অধিকাংশই ভিয়েতজেট এয়ারলাইনসের নগুয়েন থাই ফুয়োং এর মত এশিয়ান।
আত্ম-প্রতিষ্ঠিত নারীদের মধ্যে তালিকায় নতুন আসা থাই লি শৈশবে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যান। তিনি এখন পরিচালনা করছেন প্রযুক্তিপণ্য প্রতিষ্ঠান এসএইচআই।
নারী ধনীদের মধ্যে সবচেয়ে ভালো বছর গেছে আয়রন ওরে ম্যাগনেটের জিনা রাইনহার্টের। গত বছর তার সম্পদের পরিমাণ ৬ দশমিক ২ বিলিয়ন ডলার বেড়ে ১৫ বিলিয়ন ডলার হয়েছে।- বিডিনিউজ