বিশ্ব রেকর্ড গড়ে বড়ই বিব্রত মর্কেল!

আপডেট: জুলাই ১৪, ২০১৭, ১২:৪২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


একটা বিশ্ব রেকর্ড কে না চায়! সেটি খেলায় হোক বা অন্য কোনো ক্ষেত্রে। এ এক বিশাল অর্জন। কিন্তু মরনে মর্কেলের জন্য না। তার জন্য এই বিশ্ব রেকর্ড বিব্রতকর, অস্বস্তির, গায়ে জ্বালা ধরানোর। ওভারস্টেপিংয়ে টেস্টে সবচেয়ে বেশি ব্যাটসম্যানকে আউট করার বিশ্ব রেকর্ডটা এখন এই দক্ষিণ আফ্রিকার পেসার। বুঝতেই পারছেন, নো বলে যে আউট আসলে আউট না। বাতিল। ক্যারিয়ারে ১৩বার নো বলে আউট করেও উইকেট না পাওয়ার বিশ্ব রেকর্ডটা কিভাবে মেনে নিতে পারেন এই ফাস্ট বোলার!
এটা এমন এক সমস্যা যেটি একটি ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দিতে জানে। আর যারা এর শিকার তাদের বেশিরভাগ সময় খুব ভূগতে হয়। মর্কেলের জন্য সেই ভোগান্তি এই নিয়ে ১৩বার দক্ষিণ আফ্রিকার। টেস্টের ইতিহাসে যে যন্ত্রণা পোহাতে হয়নি আর কোনো দলের। প্রোটিয়ারা ইংল্যান্ড সফরে। লর্ডসের প্রথম টেস্ট হেরেছে। এর আগেও মর্কেল তার ক্যারিয়ারে অ্যান্ড্রু স্ট্রস, মাইকেল ক্লার্কদের এভাবে ওভারস্টেপিংয়ে আউট করেছেন। নো বলের কল্যাণে বেঁচে গিয়ে ওই ব্যাটসম্যানরা ম্যাচ জিতিয়েছেন, বোলারদের উপযুক্ত শাস্তিটাও বুঝিয়ে দিয়েছেন।
লর্ডসে কি ঘটলো? ইংল্যান্ডের এই সময়ের সেরা অল-রাউন্ডার বেন স্টোকস তখন ৪৪ রানে। বোল্ড হলেন মর্কেলের বলে। কিন্তু নো বল! বেঁচে গিয়েও আর মাত্র ১২ রান করতে পেরেছিলেন স্টোকস। তরুণ কাগিসো রাবাদা শেষে উইকেটটা নিয়েছেন। এবং স্টোকসকে আউট করে যে বডি ল্যাঙ্গুয়েজ দেখিয়েছেন আগ্রাসী যুবা তাতে দ্বিতীয় টেস্টের জন্য নিষিদ্ধ হয়ে গেছেন।
রাবাদা নেই। দ্বিতীয় টেস্টে মর্কেলের দায়িত্ব আরো বাড়লো। কিন্তু ট্রেন্ট ব্রিজে তাকে মনে করিয়ে দেওয়া হলো নো বল সমস্যার কথা। মর্কেল সেই কথায় বললেন, ‘১৩ হলো- বিশ্ব রেকর্ড। ধন্যবাদ। ১৩টা উইকেট হারিয়েছি। এটা গ্রহণযোগ্য না। এটা নিয়ন্ত্রণেও আনার মতো না মনে হচ্ছে।’ এটাকে অবশ্য তার উচ্চতার জন্য দোষ দিতে নারাজ ৩২ বছরের বোলার। তার মতে, ফর্মের সাথে এর সম্পর্ক, শরীরের সাথে নয়, ছন্দের সাথে। তবে লজ্জার এমন বিশ্ব রেকর্ডের পরও খুব স্পোর্টিং উচ্চারণ মর্কেলের, ‘জীবনে এটাই তো আমার প্রথম নো বল না। আর এতে আমার ক্যারিয়ারও শেষ হয়ে যাবে না।’ তবে ঠিক, মর্কেল এও বলে দিলেন ১৪তম নো বলের শিকার তিনি কিছুতেই চান না!