বিশ্ব হকি লিগে বড় জয় পেলো বাংলাদেশ

আপডেট: মার্চ ৬, ২০১৭, ১২:১২ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক



বিশ্ব হকি লিগের দ্বিতীয় রাউন্ডে শুরুটা একেবারেই ভালো হয় নি বাংলাদেশের। পরশু শনিবার  নিজেদের প্রথম ম্যাচে শক্তিশালী মালয়েশিয়ার কাছে ৩-০ গোলে হেরে গিয়েছিল স্বাগতিকরা। কিন্তু গতকাল রোববার ঘরের মাঠে দ্বিতীয় ম্যাচে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ। ফিজিকে ৫-১ গোলের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। অবশ্য এই ফিজিকে আগের ম্যাচেই ৭ গোলের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছিল ওমান।
মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামে গতকাল বাংলাদেশের জয়ে অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি ও মামুনুর রহমান চয়ন দুটি করে গোল করেন। অন্য গোলটি করেন আশরাফুল ইসলাম।
ম্যাচের ২৬ মিনিটে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। কৃষ্ণ কুমারের পুশে সারোয়ার হোসেন স্টপ করার পর পেনাল্টি কর্নার স্পেশালিস্ট চয়নের হিটে বল ঠিকানা খুঁজে পায় জালে।
ঠিক ছয় মিনিট পর গোলটি সমতায় নিয়ে আসে ফিজি। স্মিথ হেক্টরের চমৎকার হিট বাংলাদেশ গোলরক্ষক অসীম গোপ বলটি ঠেকাতে পারেননি।
অবশ্য পরের মিনিটেই এগিয়ে যায় বাংলাদেশ। কামরুজ্জামান রানার বাড়ানো বল ধরে চমৎকার হিটে বল জালে পাঠাতে একটুও ভুল করেন নি অধিনায়ক রাসেল মাহমুদ জিমি।
৪১ মিনিটে বাংলাদেশের ব্যবধান আরো বড় করেন জিমি। রোমান সরকারের কাছ থেকে পাওয়া বল সারোয়ার হোসেনের স্টিক ঘুরে নিখুঁত ফ্লিকে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন দেশসেরা এই ফরোয়ার্ড।
এর পর ৬০ মিনিটে পেনাল্টি কর্নার থেকে চয়ন এবং শেষ দিকে একইভাবে আশরাফুল ইসলাম একটি করে গোল করে ব্যবধান আরো বড় করেন।
এদিন মালয়েশিয়া ৬-১ গোলে ওমানকে উড়িয়ে  দিয়েছে। এই মালয়েশিয়া প্রথম ম্যাচে বাংলাদেশকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়েছিল।
এদিকে গতকালের ম্যাচে বাংলাদেশের অন্যতম দুর্বলতা ছিল পেনাল্টি কর্নারের সুযোগ নিতে না পারা। ১৩টি পেনাল্টি কর্নার পেয়েও মাত্র তিনটি গোল করেছে স্বাগতিকরা। ম্যাচের প্রথম দুই কোয়ার্টার অসংগঠিত থাকা ও ফরোয়ার্ডদের ফিনিশিংয়ে ব্যর্থতাও ছিল চোখে পড়ার মতো। প্রথম দিকে মনে হয়েছে বাংলাদেশ পেনাল্টি কর্নার অর্জনেই বেশি মনোযাগী। পরে অবশ্য ফিল্ড গোলের দিকে মনোযোগ দিয়েই সাফল্য পায় বাংলাদেশ। এ ছাড়া পাওয়ার হিটে ফ্লিক করে গোল করার ব্যর্থতাও চোখ এড়িয়ে যায় নি।
ম্যাচ শেষে বাংলাদেশের জার্মান কোচ কার্টজ বলেন, ‘দলের জয়টা ছিল জরুরি। দল জয়ী হয়েছে সেটিই গুরুত্বপূর্ণ। হ্যা, কিছু ব্যর্থতা আাছে। তবে সেটা আমলে নিতে চাই না আমি। মালয়েশিয়ার বিপক্ষে কৌশল ছিল ভিন্ন আর আজ ভিন্ন। আত্মবিশ্বাস বাড়াবে এই জয়।’
কার্টজ অবশ্য ফিজি গোলরক্ষক আইয়ার রিচার্ডের কথা উল্লেখ করতে ভোলেন নি, ‘ফিজি গোলরক্ষক খুবই ভালো খেলেছে। নয়তো আরও চার পাঁচটি গোল হওয়া অস্বাভাবিক ছিল না। গোলের সুযোগগুলো কাজে লাগানোর ব্যাপারে আমাদের মনোযোগী হতে হবে।’
জিমি ওমানকে নিয়ে বাড়তি কোনও চাপ নিতে নারাজ। অধিনায়ক বলেন, ‘আমরা ফিজিকে ওমানের চেয়ে কম গোলে হারিয়েছি। তাতে কিছু আসে যায় না, ওমানকে আমরা আমাদের স্বাভাবিক খেলা দিয়েই মোকাবিলা করব। আমাদের কাজ হবে ওমানের বিপক্ষে চাপমুক্ত খেলা। ওরা আমাদের চেনা প্রতিপক্ষ, আমরা ওমানকে হারাতে প্রত্যয়ী।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ