বিসিএলে দল পাননি সাব্বির-রানা-রনি

আপডেট: জানুয়ারি ২৮, ২০২০, ১২:৩৩ পূর্বাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক


সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান রানা ও আবু হায়দার রনি-সংগৃহীত

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের (বিসিএল) প্লেয়ার্স ড্রাফটে সাব্বির রহমানের প্রতি আগ্রহ দেখায়নি কেউ। দল পাননি মেহেদী হাসান রানা ও আবু হায়দার রনিও।
ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক প্রথম শ্রেণির ক্রিকেট লিগ বিসিএলের অষ্টম আসরের প্লেয়ার্স ড্রাফট অনুষ্ঠিত হয়েছে গতকাল সোমবার। অগোছালো ও তড়িঘড়ি করে শুরু হচ্ছে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের একমাত্র ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক আসর। শুরু থেকে চারটি দল নিয়ে আয়োজন করা হচ্ছে লিগ। তিনটি ফ্র্যাঞ্চাইজি ওয়ালটন, প্রাইম ব্যাংক ও ইসলামী ব্যাংক ছিল শুরু থেকেই। অষ্টম আসর থেকে নিজেদের নাম প্রত্যাহার করে নেয় প্রাইম ব্যাংক। এবার চার দলের দুটিরই মালিক বিসিবি।
জাতীয় ক্রিকেট লিগের সেরা ৮০ জন ক্রিকেটারকে নিয়ে ৩১ জানুয়ারি থেকে শুরু হচ্ছে বিসিএলের এবারের আসর। গতকাল প্লেয়ার্স ড্রাফটে জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের দিকে সবার চোখ ছিল। মুশফিক ও তামিম ইকবালকে পুরোনো দল রিটেইন করায় মাহমুদউল্লাহ, সৌম্য, মুস্তাফিজ ও লিটনদের নিয়ে আগ্রহ ছিল বেশি।
শুরুতেই দল পেয়ে যান তারা। মাহমুদউল্লাহর দল বিসিবি সাউথ জোন। সৌম্য ও মুস্তাফিজকে দলে নিয়েছে ওয়ালটন সেন্ট্রাল জোন এবং লিটন কুমার দাশকে লুফে নেয় বিসিবি নর্থ জোন।
৮০ খেলোয়াড় দল পেলেও কপাল পুড়েছে সাব্বির রহমানের। চার দলের কেউ তাকে দলে নেয়নি। গত বছর বিসিএল খেলেছিলেন বিসিবি নর্থ জোনের হয়ে। এবার তারাও সাব্বিরের থেকে মুখ ফিরিয়ে নেয়। তার দল না পাওয়ার মূল কারণ সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স। বিপিএল খুব বাজে কাটিয়েছেন সাব্বির। ভালো করতে পারেননি বিপিএলের আগে হওয়া জাতীয় ক্রিকেট লিগে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের ওই আসরে ৫ ম্যাচে ৯ ইনিংসে ১৪.১১ গড়ে রান করেছেন ১২৭।
আবু হায়দার রনি ঘরোয়া ক্রিকেটের নিয়মিত মুখ। গত আসরে ওয়ালটনে খেলেছিলেন বাঁহাতি পেসার। রিটেইন না করায় তার নাম উঠেছিল প্লেয়ার্স ড্রাফটে। কিন্তু সেখানে তার প্রতি আগ্রহ দেখায়নি কেউ।
সবথেকে বেশি অবাক করেছে মেহেদী হাসান রানার অবিক্রিত থাকাটা। বিপিএলে দুর্দান্ত কাটানো এ পেসারের সুযোগ হবে এমনটাই ধারণা করা হচ্ছিল। কিন্তু দ্রুতগতির বোলারের প্রতি আগ্রহ ছিল না কারো। সবশেষ জাতীয় ক্রিকেট লিগে চট্টগ্রাম বিভাগের হয়ে ৫ ইনিংসে ৬০ ওভারে ৩.৭০ ইকোনমিতে ৯ উইকেট পেয়েছেন। ২৩ বছর বয়সী এ পেসার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে খেলেছেন ২৭ ম্যাচ। বল হাতে উইকেট পেয়েছেন ৬৪টি।
দল না পাওয়ার হতাশা ঝরল রানার কন্ঠে, ‘এনসিএলে ৯ উইকেট পেয়েছিলাম। বিপিএল ভালো কাটলো। এরপরও যদি দল না পাই তাহলে একটু খারাপ তো লাগবেই।’

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ