বিয়ের আগে যৌন মিলন না করাই প্রকৃত ভালবাসা, সতীত্বের পক্ষে সওয়াল করে বিতর্কে পোপ

আপডেট: জুন ২১, ২০২২, ৯:১৮ অপরাহ্ণ

সোনার দেশ ডেস্ক:


ভ্যাটিকানের বর্তমান পোপ ফ্রান্সিস রঙিন চরিত্রের মানুষ। একদিকে যেমন তিনি রাশিয়া-ইউক্রন যুদ্ধে জখম শিশুদের দেখতে হাসাপাতালে যান, তীব্র নিন্দা করেন যুদ্ধের, তেমনই সোশ্যাল মিডিয়ায় বিকিনি পরা হট মডেলের ছবিতে লাইকও দেন।

এমনিতে ভ্যাটিক্যানের পোপ মানেই ভাবগম্ভীর ব্যাপার, সেই ধারণা ভেঙে দিয়েছেন ফ্রান্সিস। তবে এবার প্রকৃত ভালবাসার অর্থ বোঝাতে সমাজের চলতি ধারণাতেই সিলমোহর দিলেন। জানিয়ে দিলেন, বিয়ের আগে যৌন মিলন না করাই প্রকৃত ভালবাসা। সতীত্বের পক্ষে এমন সওয়াল করে বিতর্কে পোপ।

২০১৩ সালে ভ্যাটিক্যান সিটি স্টেটের ক্ষমতাশালী ক্যাথোলিক চার্চের পোপ হন ফ্রান্সিস। এর অর্থ তিনি রোমের বিশপ এবং ভ্যাটিক্যানের চার্চের সর্বময় কর্তা। সকলেরই জানা, বর্তমান পোপ সবসময়ে খবরে থাকেন। ক’দিন আগেও বিতর্কিত মন্তব্য করেন পঁচাশি বছরের ফ্রান্সিস।

বলেন, “সন্তানের বদলে যাঁরা পোষ্য নেওয়া পছন্দ করেন, তাঁরা আসলে স্বার্থপর। পোষ্যকে সন্তানের বিকল্প ভাবা মানবিকতা বিরোধী।” এক অনুষ্ঠানে পিতৃত্ব নিয়ে বলতে গিয়ে আরও বলেন, “সন্তানের জন্ম দেওয়া সব সময় ঝুঁকিপূর্ণ। তারচেয়েও বেশি ঝুঁকি সন্তান না থাকা।” যাঁরা পোষ্য ভালবাসেন স্বভাবতই তাঁরা পোপের এই মন্তব্যে অখুশি হন।

ফের এক মন্তব্য করে গোটা পৃথিবীর সংবাদের শিরোনামে ফ্রান্সিস। তাঁর বক্তব্য, বিয়ের আগে যৌন মিলন না করাই আসলে প্রকৃত ভালবাসার লক্ষণ। সম্প্রতি যুগলের সম্পর্ক নিয়ে নিয়ে একটি নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে ভ্যাটিকান। যা আসলে স্বয়ং পোপ ফ্রান্সিসেরই নির্দেশিকা। সেখানে বলা হয়েছে, “অল্প বয়সি স্বামী-স্ত্রীর উচিত নিজেদের সময় দেওয়া। এতে বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। বিয়ে পূর্ববর্তী সতীত্ব দাম্পত্য জীবনকে সফল করতে সাহায্য করে।” ৯৭ পাতার ওই নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে, “ইদানিংকালে দাম্পত্য সম্পর্ক ভাঙার অন্যতম কারণ যৌনতা সংক্রান্ত উত্তেজনা ও চাপ।”

পোপের এই নির্দেশিকা ভাল ভাবে নেয়নি নেটিজেনদের একাংশ। তাঁদের বক্তব্য, ক্যাথোলিক চার্চ যৌনতাকে বুঝে উঠতে পারেনি। ফ্রান্সিস পুরনোপন্থীদের মতো কথা বলেছেন। এমনকী ইতালির এক ধর্মতত্ত্ববিদ ভিটা মানকুসোর বক্তব্য, নারী-পুরুষের সম্পর্কে যৌনতার গুরুত্ব বুঝতে পারেননি পোপ।
তথ্যসূত্র: সংবাদ প্রতিদিন

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ