বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণে অন্তঃসত্তা কিশোরী, থানায় মামলা

আপডেট: আগস্ট ৬, ২০২২, ১২:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিবেদক:


পবা উপজেলার দর্শনপাড়া ইউনিয়নের তালুকধরমপুর গ্রামের এক কিশোরী (১৬) বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের শিকার হয়েছে। অতঃপর দুই মাসের অন্তঃসত্তা হয়ে বুধবার রাতে ভুক্তভোগি ওই নারী নিজেই অভিযুক্ত যুবককে আসামী করে আরএমপি’র কর্ণহার থানায় মামলা দায়ের করেছেন। পুলিশ ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)- এ পাঠিয়েছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, কর্ণহার থানার দর্শনপাড়া ইউনিয়নের তালুকধরমপুর গ্রামের ইয়াছিন আলীর ছেলে মো. মোরসালিন (২১) প্রতিবেশী (ভিকটিম)কে কু-প্রস্তাব দিতে থাকে। এতে ওই নারী অসম্মতি জানালে মোরসালিন প্রেমের আশ্রয় নেয় এবং বিয়ের প্রলোভন দেখায়। পাশাপাশি বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে মোরসালিন শারীরিকভাবে মেলামেশা করতে থাকে। ভিকটিমের দাবি মতে প্রায় চারমাস আগে থেকে মেলামেশার এক পর্যায়ে অন্তঃসত্তা হয়ে পড়ে।

এদিকে ভিকটিম মোরসালিনকে বিয়ের জন্য চাপ দিলে টালবাহানা শুরু করে। শেষে বিয়ে করবে না বলে ভিকটিমকে জানিয়ে দেয়। প্রেক্ষিতে বিয়ের দাবিতে মোরসালিনের বাড়িতে উঠে পড়লে ভুক্তভোগি নারীকে মারপিট করা হয়। এছাড়াও ছেলের বাবা ইয়াছিন আলী কর্ণহার থানায় বিষয়টি জানায়। কর্ণহার থানা পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার করে। এরপর ওই নারী বাদি হয়ে মোরসালিনকে আসামী করে মামলা করলে ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য পুলিশ ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)’তে পাঠায়।

এব্যাপারে কর্ণহার থানার ওসি ইসমাইল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, ভিকটিম মামলা করলে পরীক্ষার জন্য ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার (ওসিসি)’তে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি আসামী গ্রেপ্তার অভিযান অব্যাহত রয়েছে। এদিকে মেয়ের বাবা-মা জানায়, ভিকটিম বর্তমানে ২ মাসের অন্তঃসত্তা।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ